ramdev_rajya

ডেস্ক: যে লড়াই করে তার জন্য নিয়মিত যোগা করা জরুরি বলে মনে করেন যোগগুরু রামদেব৷ তাই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা রাজস্থানের জয়পুর লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী রাজ্যবর্ধন সিং রাঠোরও মঙ্গলবার প্রায় ৫০০ মিটার হেঁটে জয়পুর কালেক্টরেট অফিসে গিয়ে প্রাণায়াম করে মনোনয়নপত্র পেশ করেন৷ মনোনয়ন পেশের সময় যোগগুরু বাবা রামদেবও তাঁর সঙ্গে ছিলেন৷

সোনাজয়ী এই অলিম্পয়ান্‌স প্রতিদিন নিয়মিত যোগা করেন দাবি জানিয়ে নির্বাচনে জেতার জন্য যোগগুরুর আশীর্বাদও চান৷ রামদেবও শিষ্যকে আশীর্বাদ দিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ‘রাঠোর ইতিমধ্যে এক মহান উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছেন৷ তিনি রাষ্ট্রধর্ম পালন করছেন৷’ একইসঙ্গে রাঠোরের প্রাণায়াম প্রসঙ্গে বিরোধীদের প্রতি তাঁর কটাক্ষ, ‘প্রাণায়াম নিয়ে কেউ নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানাতে পারে না৷’ মানুষ যোগা না করার জন্যই বর্তমান রাজনীতি ঝিমিয়ে পড়েছে বলেও যোগগুরুর অভিযোগ৷ বর্তমান রাজনীতি ঝিমিয়ে পড়লেও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে দেশের অগ্রগতি হয়েছে বলে দাবি জানান রাজ্যবর্ধন৷

জেলা কালেক্টরেট অফিসে মনোনয়নপত্র পেশের পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘দেশের যোগ্য নেতৃত্বের প্রয়োজন রয়েছে৷ গত কয়েক দশক যোগ্য নেতৃত্বের অভাবে দেশ এগোতে পারেনি৷ তবে বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে দেশের অগ্রগতি হয়েছে৷’ যদিও রাঠোরের এই দাবিকে নস্যাৎ করে দিয়ে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী তথা কংগ্রেস প্রার্থী সোনাজয়ী অলিম্পিয়ান্স কৃষ্ণা পুনিয়ার তোপ, ‘বিজেপি কেবল প্রতিশ্রুতি দিয়েছে৷ যখন দেশের টাকা লুঠ হচ্ছিল, চৌকিদার (নরেন্দ্র মোদী) কেন ঘুমোচ্ছিলেন?’

প্রসঙ্গত, এবারের নির্বাচনে দুই অলিম্পিয়ানের লড়াই দেখতে চলেছে জয়পুরের মানুষ৷ কেননা বিজেপি প্রার্থী রাজ্যবর্ধন সিং রাঠোর দু-বারের সোনাজয়ী অলিম্পিয়ান৷ ভারতীয় সেনাবাহিনীর কর্নেল পদেও ছিলেন তিনি৷ অন্যদিকে, কমনওয়েল্‌থ গেমসের প্রথম মহিলা সোনাজয়ী, ‘পদ্মশ্রী’ প্রাপ্ত কৃষ্ণা পুনিয়া জয়পুর কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী৷ তবে তাঁরা রাজনীতির ময়দানে প্রতিদ্বন্দ্বী হলেও ক্রীড়াক্ষেত্রে কোনো লড়াই নেই বলে দাবি জানিয়েছেন কৃষ্ণা৷ তাঁর কথায়, ‘আমাদের লড়াই ক্রীড়াবিদ হিসাবে নয়৷ এই লড়াই গণতন্ত্র বাঁচানোর জন্য৷’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here