এনআরসি তালিকায় গরমিলের কথা স্বীকার রামের, হিন্দু বাঙালিদের পাশে থাকার অঙ্গীকার

0
828
ram kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: অসমে ৩১ আগস্ট প্রকাশিত নাগরিকপঞ্জি(এনআরসি) প্রকাশের পর অসমে শাসক বিজেপি বেশ প্যাঁচে পড়ে গিয়েছে৷ নিজের সরকারের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে সরব হয়েছেন অসমের আবহালি সাংসদ, বিধায়ক মন্ত্রীরা৷ড্যামেজ কন্ট্রোলের জন্য সেখানে কদিন আগে যেতে বাধ্য হয়েছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি তথা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷ সরকারের সিদ্ধান্তর তীব্র বিরোধিতা করে ইতিমধ্যেই পথে নেমে প্রতিবাদ জানিয়েছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, হিন্দু সংহতি, বজরং দলের মতো গেরুয়া সংগঠন৷ তারা এই নিয়ে অসম বনধ পর্যন্ত দফায় দফায় ডেকেছ৷ নাগরিকপঞ্জি নিয়ে কীসের এত সমস্যা?

এক কথায় ১৯ লক্ষ বিদেশিদের মধ্যে ১২ লক্ষ হিন্দু বাঙালি৷ এত সংখ্যক হিন্দুদের তালিকা থেকে বাদ পড়াই অসম তথা কেন্দ্র বিজেপির এত মাথাব্যথার কারণ৷ তার ওপর বিজেপির মেন্টর রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘ(আরএসএস) পর্যন্ত এর কড়া বিরোধিতা করেছে৷ সেদিন অমিত এসেছিলেন এদিন এলেন রাম মাধব৷ তিনি শুধু বিজেপির কেন্দ্রীয়. সাধারণ সম্পাদকই নন, আপশপাশি উত্তর-পূর্বে দলের দায়িত্বেও আছেন তিনি৷

রাম মাধব সোজা স্বীকার করে নিলেন এনআরসি তালিকায় প্রচুর ভুল আছে৷ সেই সঙ্গে তাঁর আশ্বাস, আমরা এই তালিকায় বাতিল হওয়া সব হিন্দু বাঙালিদের নাগরিকত্ব ফেরৎ দেব৷ তাঁর কথায়,’যারা ধর্মীয় এবং সামাজিক নির্যাতনের শিকার হয়ে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ভারতে এসেছেন তাদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবেই।’

পাশপাশি রাম এই নাগরিকপঞ্জির ভুলের যাবতীয় দায় কংগ্রেসের ওপর চাপিয়ে দিলেন৷ তাঁর কথায়, কংগ্রেসের জন্য আজ এমন দশা৷ সামনেই জাতির জনক মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধীর সার্ধ শতবর্ষ৷ এই নিয়ে বিজেপি, কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেস আলাদা করে অনুষ্ঠান করবে৷ এদিন রাম গান্ধীজির প্রসঙ্গে টেন জানান গান্ধীজি বলে  গিয়েছিলেন নেহরু দেশকে ৫০ বছর পিছিয়ে দিলেন৷ তাঁর কথার গুরুত্ব আজ হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে আজকের ভারত বলে মনে করেন তিনি৷

রাম মাধবের কথায়, ‘১৯৫১ সালে সারা দেশে এনআরসি হয়েছে শুধুমাত্র অসমকে বাদ দিয়ে। তৎকালীন সরকারের ভুলে প্রক্রিয়াটি এই রাজ্যে ৭০ বছর পিছিয়ে যায়, তাই এটি বাস্তবায়নে ছোটখাটো সমস্যা থাকা খুব স্বাভাবিক। তবে আমি কথা দিচ্ছি, এগুলো আস্তে আস্তে শুধরে নেওয়া হবে। সত্যিকারের ভারতীয় এবং নির্যাতিত অমুসলমান শরণার্থীরা ভারতীয় নাগরিকত্ব থেকে কোনওভাবেই বঞ্চিত হবেন না। যারা ধর্মীয় এবং সামাজিক নির্যাতনের শিকার হয়ে ২০১৫ সাল পর্যন্ত্য ভারতে এসেছেন তাদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবেই।’ এমনটাই আশ্বাস দিলেন ভারতীয় জনতা পার্টির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here