ডেস্ক: উত্তর প্রদেশের রাজনীতির সঙ্গে জাতপাত এবং ধর্ম প্রত্যক্ষভাবে জড়িত৷ দলিত হোক কিংবা হিন্দু-মুসলমান, উত্তর প্রদেশের রাজনৈতিক দলগুলি সবসময় জাতপাত এবং ধর্ম নিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা তোলার চেষ্টা করে৷ এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই বিভাজনের রাজনীতি করে সফলও হয়ে থাকে দলগুলি৷ যেমন, গত আড়াই-তিন দশক ধরে রাম জন্মভূমি–বাবরি মসজিদ বিতর্কে উত্তর প্রদেশের রাজনীতি উত্তপ্ত হয়ে থাকে৷ ধর্মের সুড়সুড়ি দিয়ে রাজনৈতিক দলগুলি এই রাজ্যে ক্ষমতা দখল করে৷ এবার সেই উত্তর প্রদেশই সাক্ষী রইল অনন্য সাধারণ এক সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির৷ রাম জন্মভূমিতে রচিত হল উর্দু রামায়ণ৷ মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্যই রামায়ণের উর্দু অনুবাদ করলেন মাহি তালাত সিদ্দিকি নামে এক মুসলিম মহিলা৷ পেশায় তিনি একজন গবেষক৷ যা ইতিমধ্যেই গোটা রাজ্য জুড়েই খুব জনপ্রিয় হয়েছে৷

মাহি তালাত সিদ্দিকি উত্তর প্রদেশের কানপুরের প্রেমনগর এলাকায় থাকেন৷ রামায়ণের উর্দু অনুবাদ সম্পর্কে মাহি জানান, রামায়ণের ইতিবাচক দিক রয়েছে৷ সেগুলির সঙ্গে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষদের অবগত হওয়া দরকার৷ এবং সেই লক্ষ্যেই রামায়ণের উর্দু অনুবাদের বিষয়টি তাঁর মাথায় এসেছিল৷ তিনি মনে করেন, রামায়ণে শিক্ষণীয় অনেক বিষয় আছে, যা মুসলিমদেরও জানা উচিত৷ অন্যান্য ধর্মগ্রন্থের মতোই রামায়ণে সৌভ্রাতৃত্ব, সম্প্রীতি এবং প্রেম-ভালোবাসা ও পারিবারিক সম্পর্কের বার্তা রয়েছে। মাহি মনে করেন, দেশজুড়ে ধর্মের দোহাই দিয়ে হিংসা ছড়ানোর চেষ্টা চলছে। কিন্তু কোনও ধর্মই হিংসা ছড়ানোর কথা বলে না। সব ধর্মই ঐক্য, সহিষ্ণুতা, সম্প্রীতি, ভালোবাসা এবং অন্যের ধর্মকে শ্রদ্ধা করার কথা বলে৷ আর এই বিষয়টি সকল ধর্মের মানুষকে বুঝতে হবে৷

মাহি তালাত সিদ্দিকি হিন্দি সাহিত্যের স্নাতক৷ তাঁকে বদ্রীনারায়ণ তিওয়ারি নামে কানপুরেরই এক গবেষক, রামায়ণের একটি প্রতিলিপি একবার পড়তে দিয়েছিলেন। আর এই মহাকাব্যটি পড়ে মোহিত হয়ে পড়েন মাহি। রামায়ণের বাস্তবতার প্রতি তিনি প্রবলভাবে আকর্ষিত হয়েছিলেন৷ তখনই মাহি ঠিক করেল ফেলেন রামায়ণ তিনি উর্দুতে অনুবাদ করবেন। এই অনুবাদ করতে দেড়বছর সময় লেগেছে মাহির৷ মূল ঘটনার কোনও বদল না করেই তিনি উর্দুতে অনুবাদ করেন রামায়ণ৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here