গানের রেকর্ডিং সেরে রানাঘাটে ফিরতেই সম্বর্ধনার জোয়ারে ভাসলেন রাণুদি

0
368

নিজস্ব প্রতিবেদক, রানাঘাট: ভবঘুরের মত রাস্তায়, রানাঘাট স্টেশন এলাকায় ঘুরে-ঘুরে গান গাইতেন। আত্মীয়-স্বজন, এমনকি নিজের মেয়েও তাঁকে ফিরে দেখত না। পথচলতি মানুষজন কখনও তাঁর গানে মুগ্ধ হয়ে দয়া করে দু-এক টাকা বা কেউ ১০ টাকা তাঁর হাতে গুঁজে দিত। পাড়া-প্রতিবেশী মাঝেমধ্যে খাবার দিত। আর তা দিয়েই কোনওক্রমে দিন গুজরান করতেন গানপ্রেমী, খামখেয়ালি স্বভাবের রাণু মন্ডল। আত্মীয়-স্বজন বা পাড়া-প্রতিবেশী কেউই তাঁকে গুরুত্ব দিতেন না। কিন্তু আজ রাণু মন্ডল আর রানাঘাটের সেই ‘পাগলি’ গায়িকা নন, তিনি এখন মুম্বইয়ের গায়িকা, আমাদের সবার প্রিয় ‘রাণুদি’। তাই আত্মীয়-পরিজন থেকে শুরু করে এলাকাবাসীর কাছে তাঁর গুরুত্বও বেড়েছে। সেজন্য মুম্বইয়ে গানের রেকর্ডিং সেরে নিজের বাড়িতে ফিরতেই ভেসে এল সম্বর্ধনার জোয়ার।

রবিবার সকালে রানাঘাটের বাসিন্দারাই সম্বর্ধনায় ভরিয়ে দিলেন তাঁদের চিরপরিচিত অতি সাধারণ রাণু মন্ডলকে। গায়িকার তকমা পেয়ে রাণু মন্ডল থেকে জনপ্রিয় রাণুদি হয়ে ওঠার পর এদিনই প্রথম তাঁকে কাছে পেয়েছে রানাঘাটের বাসিন্দারা। তাই তাঁরা আর আবেগ ধরে রাখতে পারেনি। যাঁকে কেউ কোনওদিন পাত্তা দেয়নি, যাঁকে সকলে ভবঘুরে, ‘পাগলি’ ভাবত- সেই রাণু মণ্ডল মুম্বইয়ে হিমেশ রেশমিয়ার সঙ্গে গান রেকর্ডিং করে খ্যাতি অর্জন করেছেন। এটা কেবল রাণু মন্ডলের নয়, সমগ্র এলাকার গর্ব বলে মনে করছেন রানাঘাটের বাসিন্দারা। রাণুর খ্যাতিতে তাঁর প্রতিবেশীরা বিশেষ গর্বিত বোধ করছেন। কেননা এতদিন তাঁদের সাহচর্যেই ছিলেন রাণু। তাই পাড়ার গর্ব, এলাকার গর্ব, সকলের প্রিয় রাণুদিকে এদিন সমগ্র রানাঘাটের তরফে বিশেষ সম্বর্ধনা দেওয়া হয়। এলাকাবাসীর কাছ থেকে সম্বর্ধনা পেয়ে আপ্লুত রাণুদিও।

রাণুদি কেবল এলাকাবাসীর থেকে সম্বর্ধনা নিয়ে আনন্দ প্রকাশ করেই থেমে থাকেননি, মুম্বইয়ে গান রেকর্ডিং করার অভিজ্ঞতার কথাও সকলকে শোনান। প্রখ্যাত সঙ্গীত পরিচালক হিমেশ রেশমাইয়ার সঙ্গে গান করে তিনি যে খুব খুশি, সে কথাও জানিয়েছেন প্রতিবেশীদের। তারপর পাড়ার কচি-কাঁচাদের আব্দার মেটাতে তাঁদের গানও শোনান টেলিভিশনের জনপ্রিয় রিয়্যালিটি শো ‘সুপারস্টার সিঙ্গার’-এর ‘আপকামিং’ অতিথি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here