ডেস্ক: জোর গলায় ব্যাঙ্কের উন্নতির প্রচার করলেও, মোদী জামানায় ঘুণ পোকা লেগেছে ব্যাঙ্কগুলির শরীরে। ফলস্বরুপ, দিনে দিনে ব্যাপকভাবে বাড়ছে ব্যাঙ্কগুলির ক্ষতির পরিমাণ। শুধুমাত্রই নীরব মোদির জেরে পিএনবিই নয়, লোকসানের তালিকায় রয়েছে এসবিআই, ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া, ইউকো ব্যাঙ্ক, ব্যাঙ্ক অফ বরোদার মতো প্রায় ২১ টি রাষ্ট্রায়াত্ব ব্যাঙ্ক।

দেশজুড়ে বিভিন্ন ব্যাঙ্কে জালিয়াতির জেরে সম্প্রতি আরবিআইইয়ের কাছে আরটিআই করেছিলেন চন্দ্রশেখর গৌড় নামে এক ব্যক্তি। তার পরিপ্রেক্ষিতে আরবিআই যা রিপোর্ট দিয়েছে তা রীতিমতো চোখ কপালে তুলে দেয়। প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষে রাষ্ট্রায়াত্ব ব্যাঙ্কগুলির ক্ষতির পরিমাণ ২৫ হাজার ৭৭৫ কোটি টাকা। যার মধ্যে সর্বাগ্রে রয়েছে পিএনবি। নীরব জেরে এই ব্যাঙ্কের ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৬৪৬১.১৩ কোটি টাকা।

তথ্যের তালিকা অনুযায়ী, পিএনবির ঠিক পরেই রয়েছে স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া। এর ক্ষতির পরিমাণ ২৩৯০.৭৫ কোটি টাকা। লোকসানে চলছে ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়াও, তার ক্ষতির পরিমাণ ২২২৪.৮৬ কোটি। ব্যাঙ্ক অফ বরোদার ১,৯২৮.২৫ কোটি, এলাহাবাদ ব্যাঙ্ক ১,৫২০.৩৭ কোটি, অন্ধ্র ব্যাঙ্কের ১,৩০৩.৩০ কোটি এবং ইউকো ব্যাঙ্কের ১২২৪.৬৪ কোটি। এছাড়াও আইডিবিআই-এর ক্ষতি ১,১১৬.৫৩ কোটি, ইউনিয়ন ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার ১০৯৫.৮৪ কোটি, সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার ১,০৮৪.৫০ কোটি, ব্যাঙ্ক অফ মহারাষ্ট্রের ১,০২৯.২৩ কোটি এবং ইন্ডিয়ান ওভারসিজ ব্যাঙ্কের ১,০১৫.৭৯ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। ১ লক্ষ টাকার উপরে যে সমস্ত ব্যাঙ্ক গুলি লোকসানে চলছে সেগুলি হল, কর্পোরেশন ব্যাঙ্ক (৯৭০.৮৯ কোটি), ইউনাইটেড ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া(৮৮০.৫৩ কোটি), ওরিয়েন্টাল ব্যাঙ্ক অফ কমার্স(৬৫০.২৮ কোটি), সিন্ডিকেট ব্যাঙ্ক(৪৫৫.০৫ কোটি), কানাড়া ব্যাঙ্ক( ১৯০.৭৭ কোটি), পঞ্জাব অ্যান্ড সিন্ধ ব্যাঙ্ক( ৯০.০১ কোটি), দেনা ব্যাঙ্ক(৮৯.২৫ কোটি), বিজয়া ব্যাঙ্ক(২৮.৫৮ কোটি), ইন্ডিয়ান ব্যাঙ্ক(২৪.২৩ কোটি টাকা)।

দেশের শীর্ষ ব্যাঙ্কের এই রিপোর্ট চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় উন্নয়নের রমরমা বাজারে কি পরিমাণ ফোঁপরা হয়ে গিয়েছে ব্যাঙ্কের অবস্থাগুলি। বিষয়টি সর্বপ্রথম চোখে পড়ে পঞ্চাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক জালিয়াতিতে। প্রায় ১২,৬৩৬ কোটি টাকার প্রতারণা কাণ্ডে হিরে ব্যবসায়ী নীরব মোদী ও মেহুল চোকসির বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে সিবিআই। কিন্তু নীরব মোদী শুধুমাত্র তালিকার একটি নাম ছিল পিছনে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে রয়েছে দেশের বেশিরভাগ ব্যাঙ্কগুলি। তবে এই ক্ষতি কি প্রতারনা নাকি অন্য কিছু? সেবিস্যে কোনও তথ্য দেয়নি রিজার্ভ ব্যাঙ্ক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here