national news

Highlights

  • রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণ ভিক্ষার আবেদন মুকেশ কুমারের
  •  স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক রামমাথ কোবিন্দকে অনুরোধ করেছে, যাতে সেই আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়
  • সাত বছর পরও যেভাবে ফাঁসি নিয়ে টালবাহানা চলছে, তা মেনে নিতে পারছেন না ধর্ষিতার মা

মহানগর ওয়েবডেস্ক: নির্ভয়া ধর্ষণকাণ্ডের সাত বছর কেটে গেলেও এখনও মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হল না দোষীদের। আইনের নানা ফাঁকফোকর গলে চলছে শুধু সময় চুরির খেলা। তাই পাতিয়ালা হাউজ কোর্টের ২২ তারিখ ফাঁসি কার্যকর করার নির্দেশের পরেও রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণ ভিক্ষার আবেদন জানাতে পেরেছিলেন অন্যতম দোষী মুকেশ কুমার। শুক্রবার সেই প্রাণভিক্ষার আবেদন পত্রই রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠিয়ে দিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। যদিও রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদন করা হয়েছে, যাতে এই প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজ করে দেন তিনি।

আগামী ২২ জানুয়ারি তিহাড় জেলে ফাঁসি হওয়ার কথা ছিল চার দোষী বিনয় শর্মা, মুকেশ কুমার, অক্ষয় সিং ও পবন গুপ্তা। সেই ফাঁসি রুখতে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন দোষীদের আইনজীবী। যদিও সেই কিউরেটিভ প্লি খারিজ করে দেয় সর্বোচ্চ আদালত।

যদিও সেই আবেদন খারিজের পরেই রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার করে মুকেশ। সেই আবেদনপত্রই আজ রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো হয়। তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক রামমাথ কোবিন্দকে অনুরোধ করেছে, যাতে সেই আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়।

যদিও এই আবেদনের ফলে ২২ জানুয়ারি ফাঁসি হচ্ছে না চার দোষীর। কারণ আইন অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি যদি প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ করেও দেন, তারপর ১৪ দিন ফাঁসি কার্যকর করা যায় না। সেই অনুযায়ী ২২ তারিখ ফাঁসি হচ্ছে না। ইতিমধ্যেই তিহাড় জেলের পক্ষ থেকেও নতুন ফাঁসির নির্ঘণ্ট জানতে চেয়ে আবেদন করা হয়েছে।

অন্যদিকে, অপেক্ষার সাত বছর পরও যেভাবে ফাঁসি নিয়ে টালবাহানা চলছে, তা মেনে নিতে পারছেন না ধর্ষিতার মা আশা দেবী। নিরুপায় হয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছে এখন কাতর আর্জি জানাচ্ছেন তিনি। ‘আপনি ২০১৪ সালে নারী সুরক্ষার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন, দয়া করে ওদের ২২ জানুয়ারিই ফাঁসিতে ঝোলান’, অশ্রুসজল চোখে বলছেন বলছেন তিনি।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here