নিজস্ব প্রতিবেদক, বারুইপুর: ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচির মাধ্যমে মানুষের সঙ্গে জনসংযোগ বাড়াতে দলীয় কর্মীদের বাড়িতে  রাত্রিযাপন করতে দেখা গিয়েছে ঘাসফুল শিবিরের বিধায়ক-কর্মীদের৷ ‘দিদিকে বলো’ হেল্পলাইন চালু হওয়ার পরই অভিযোগ জানালেও দিদি শুনতে পান না বলে তোপ দেগেছে বিরোধীরা৷ সেই অভিযোগকারীদের তালিকায় রয়েছে বামেরাও৷ এবার দলেরই কর্মসূচিতে বেরিয়ে পুরোনো সহকর্মীর সঙ্গে দেখা হতেই আড্ডায় মজলেন ভাঙড়ের বিধায়ক রেজ্জাক মোল্লা৷হোক না সেই সহকর্মী এখন বিরোধী দলের কর্মী এক সময় তো লড়েছিলেন একসঙ্গেই। তাই পথ ভুলে নয়, খোশ মেজাজে দেখা গিয়েছে তাঁকে৷

জনসংযোগ কর্মসূচিতে রেজ্জার মোল্লার দলীয় কর্মী–নেতাদের বাড়িতে যাওয়ার কথা ছিল৷ “দিদিকে বলো” কর্মসূচিতে যোগ দিতে বুধবার ভাঙড়ের কোচপুকুর গ্রামে এসেছিলেন তিনি।এলাকার সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলার পর পায়ে হেটে এলাকা পরিদর্শন করতেই সিপিআইএমের এক সহকর্মীর সঙ্গে দেখা হয় তাঁর৷ পুরোনো সহকর্মীর সঙ্গে কুশল বিনিময় করার পর কোনও প্রস্তুতি ছাড়াই সহকর্মীর বাড়িতে চলে জান। অপ্রস্তুত একদা সিপিআইএম কর্মী এমদাদ গাছি চেয়ার এনে বসতে দেন রেজ্জাক মোল্লাকে।কথা বলেন দীর্ঘক্ষন। কিন্তু তা না করে এক সময়ের সহকর্মীর বাড়িতে গিয়ে পৌঁছান ভাঙড় বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক তথা রাজ্যের খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ মন্ত্রী আব্দুর রেজ্জাক মোল্লা।

পরে নির্ধারিত সূচী অনুযায়ী তৃণমূল কংগ্রেস নেতা মোহাসিন গাজীর বাড়িতে জান। সেখানেই রাত্রি যাপন করেন। এদিনের এই জনসংযোগ কর্মসূচিতে মন্ত্রী রেজ্জাক মোল্লার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন ভাঙড়ের তৃণমূল নেতা তথা জেলা পরিষদ সদস্য নান্নু হোসেন, ভাঙড় ১ নং ব্লকের সভাপতি কাইজার আহমেদ, ভাঙড় ২ নং ব্লকের কার্যকারি সভাপতি আব্দুর রহিম সহ জেলা পরিষদ সদস্য মোস্তাক আহমেদ, পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য মিজানুর আলম, মহাশিন গাজী উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here