ছবি: প্রতীকী

ডেস্ক: অসমের এনআরসির সিদ্ধান্ত নিয়ে তোলপাড় দেশ। কেন্দ্রীয় সরকারের এই সিদ্ধান্তে একে একে সরব হয়েছে বিভিন্ন বিরোধী রাজনৈতিক দল। কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী থেকে শুরু করে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সকলেই এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আসরে নেমেছেন। কিন্তু এনআরসি-র সিদ্ধান্ত নিয়ে নিজেদের অবস্থান থেকে এক পা-ও নড়েনি নরেন্দ্র মোদী সরকার। অসমের পর বিভিন্ন রাজ্যে এনআরসি-র ‘হুমকি’ দিয়েছেন অমিত শাহ-রা। বিজেপির এই এনআরসি-র তালিকায় প্রাধান্য পেয়েছে বাংলা। সেই নিয়ে বঙ্গ রাজনীতিও সরগরম। বাংলায় বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও এনআরসি করা নিয়ে তোপ দেগে রেখেছেন। এই প্রেক্ষাপটে কিছু বুঝে ওঠার আগেই ময়দানে নেমে পড়ল রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ বা RSS। এ রাজ্যে এনআরসি নিয়ে প্রচার শুরু করে দিল তারা।

জানা যাচ্ছে, এনআরসি কি ও তা কেন প্রয়োজন সেই বিষয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচার চালাবে রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘের কর্মীরা। এর জন্য প্রথমে বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকাগুলিকে বেছে নিয়েছে তারা। RSS-এর তরফে জানান হয়েছে, অনুপ্রবেশ এবং বাংলাদেশি মুসলিম রাজ্যে প্রবেশের ফলে অদূর ভবিষ্যতে যে সমস্যা হবে, আতঙ্ক ছড়াবে তার সম্পর্কে তাদের সচেতন করা হবে। একইসঙ্গে আইনি নথিপত্র হাতে রাখারও প্রশিক্ষণ দেবে তারা। আরও জানা যাচ্ছে, এনআরসি চালু করার জন্য সুপ্রিম কোর্টেও মামলা দায়রের কথা ভাবছে RSS। সেই বিষয়ে বিভিন্ন আইনজীবীর সঙ্গেও আলোচনা করছে তারা। তাদের মতে, এনআরসি ছাড়া দেশ থেকে বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারী তাড়ানো কোনওভাবেই সম্ভব নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here