ডেস্ক: বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তকে নিয়ে যে জল্পনা ছড়িয়েছিল তা যেন দিনদিন আরও বেড়ে চলেছে। মুকুল রায়ের সঙ্গে লুচি আলুরদম খাওয়া নিয়ে সংবাদমাধ্যমে বিবৃতি দিতে হয়েছে সব্য়সাচীকে। কিন্তু পরবর্তী সময়ে ফের ‘ভারত মাতা কি জয়’ বলে বিতর্কে এসছেন তিনি। এ বার সল্টলেকে তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যের মন্ত্রী সুজিত বসু আয়োজিত হোলির প্রীতি সম্মেলনে আমন্ত্রিতের তালিকায় তাঁকে না রাখার বিষয় জলঘোলা আরও বাড়িয়ে দিল। তবে কি সত্যিই এবার ঘাসফুল ছাড়তে চলেছেন বিধাননগরের মেয়র?

দোলের দিন সল্টলেকেই মারোয়াড়ি সমাজের একটি অনুষ্ঠানে ‘ভারত মাতা কি জয়’ বলে সব্যসাচী অনুগামীদের বলেছিলেন, মেয়র-বিধায়ক থাকুন বা না থাকুন, তিনি তাঁদের ঘরের ছেলে হয়ে থাকতে চান। এই মন্তব্যে তীব্র জল্পনা ছড়িয়েছিল। এবার সেই জায়গাতেই হোলির প্রীতি সম্মেলন অনুষ্ঠান হবে সুজিত বসুর তত্ত্বাবধানে। সেখানে আমন্ত্রিতদের তালিকায় নাম নেই সব্যসাচীর। এই ‘অন্তর্দ্বন্দ্ব’ তৃণমূলের অস্বস্তি যে কমাবে না তা পরিস্কার। এর আগে মাড়োয়ারি সমাজের এক অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উপস্থিত হয়েছিলেন। তবে আশ্চর্যজনকভাবে সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না মারোয়াড়ি সমাজের সঙ্গে দলের সমন্বয় রাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত সব্যসাচী। তখনও বেশ বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছিল।

 

উল্লেখ্য, সুজিত বসু আয়োজিত হোলির এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকছেন, স্থানীয় সাংসদ কাকলি ঘোষদস্তিদার, জেলারই মন্ত্রী এবং বিধায়ক পূর্ণেন্দু বসু এবং ব্রাত্য বসু, জেলা তৃণমূল সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক এবং কলকাতার মেয়র ববি হাকিম। তৃণমূলের সব হেভিওয়েট নেতাদের মধ্যে বিধাননগরের মেয়র না থাকায় ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here