মহানগর ওয়েবডেস্ক: রাজস্থানে বিধানসভা অধিবেশন শুরু হওয়ার নতুন করে রাজনৈতিক সক্রিয়তা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ফলের অন্দরে থেকেই ‘বিশ্বাসে আঘাত’ করা নেতা শচীন পাইলটের সঙ্গে অবশেষে দেখা করেছে কংগ্রেসের হাইকমান্ড। সূত্রের খবর, রাজস্থানের প্রাক্তন উপমুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে এদিন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী সাক্ষাৎ করেন। উপস্থিত ছিলেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢ়রাও। বৈঠকের পর প্রাথমিক সূত্র জানাচ্ছে, ইতিবাচক কথাবার্তা হয়েছে। ফলে কংগ্রেসের হাইকমান্ড অবশেষে শচীন পাইলটের মানভঞ্জনে সক্ষম হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, আগামী ১৪ অগাস্ট থেকে রাজস্থানের বিধানসভা অধিবেশন শুরু হবে। তার আগে এদিনের বৈঠকে যোগ দিয়ে অধিবেশনেও উপস্থিত থাকার আশঙ্কা জাগিয়ে দিয়েছেন শচীন পাইলট। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি ও উপমুখ্যমন্ত্রীর পদ হারানো শচীন নিজের রাগ ও ক্ষোভকে দূরে সরিয়ে রেখে ফের কংগ্রেসে ফিরে আসবেন বলেই আশা কংগ্রেস শিবিরের। এর আগে যেই সময় শচীন দূরত্ব তৈরি করে ‘নিখোঁজ’ হয়ে বসে ছিলেন, সেই সময়ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢ়রা তাঁকে বুঝিয়ে-সুঝিয়ে দলে ফেরানোর চেষ্টা করেছিলেন।

পাইলট শিবিরের বিধায়করা আপাতত ফরিদাবাদ থেকে মানেসরের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছেন। তাদেরই মধ্যে একজন এই সম্ভাবনার প্রসঙ্গে বলেন, কংগ্রেসের পরিষদীয় দলের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, কোনও অবস্থাতেই বিদ্রোহী বিধায়কদের দলে ফেরানো হবে না। প্রাথমিক ভাবে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের কার্য পদ্ধতি নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেই বিদ্রোহীরা মুখ খুলেছিলেন।

পরিষদীয় দলের সিদ্ধান্তের কথা মাথায় রেখেই কংগ্রেসের এক নেতা জানিয়েছেন, বিধানসভা অধিবেশনের দিন যত এগিয়ে আসছে ততই মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট সরকারের আস্থা ভোটে জয়ী হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ছে। এই অবস্থায় পাইলট শিবিরের বিধায়করা তাদের নিরাপত্তাহীনতা থেকে পাইলটকে দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে সমঝোতা সূত্র খুঁজে বার করার জন্য চাপ দিতে শুরু করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here