saif ali khan

মহানগর ওয়েবডেস্ক: মনসুর আলি পাটৌডি খান ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক ছিলেন। কিন্তু তাঁর পুত্র হয়েও ক্রিকেটের প্রতি সইফের অনুরাগ না থাকায় ছোটবেলা থেকেই নান কথা শুনতে হয়। এই কথা বারবার জানিয়েছেন অভিনেতা। সদ্য এক সাক্ষাৎকারে

তিনি বলেছেন, ”ক্রিকেট আমার রক্তে আছে। ঠিক যেমনটা আমার ধর্ম আমার নামের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে। শুধু আমার বাবা নয়, আমার দাদু ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক ছিলেন, উনি ডন ব্র্যাডম্যানের সঙ্গে খেলেছেন। আমি কিন্তু খুব ভালো ক্রিকেট খেলতে পারি, কিন্তু স্কুলে বা কলেজে কোনওদিন ক্রিকেট খেলিনি। আসল ব্যাপার হল ক্রিকেটটা খুবই বুদ্ধির খেলা, ধৈর্য্যের খেলা, সময় লাগে বুঝতে। যেটা আমার মধ্যে একদমই নেই, তাই ক্রিকেটার হিসাবে আমি নিজেকে কোনওদিন দেখতে চাইনি।” বলিউডে অভিনয় করতে এসেও তাঁকে নানা কটূক্তির শিকার হতে হয়। সেই বিষয়ে সইফ জানান, ”স্কুল শেষ হওয়ার পর আমি জানতাম না কী হবে? স্কুল শেষ কলেজের পাঠ ঘুচে গিয়েছে। এবার কী করব আমি? ভেবেই চিন্তিত হতাম আমি। তখন কোনও কিছু না ভেবে অভিনয় করতে চলে আসি। কারণ আমার মাথায় একটাই কথা ঘুরপাক খাচ্ছিল, জীবনে অফিসে কাজ করব না আমি। ৯-৫ টার ডিউটি করতে করতে হাঁপিয়ে যাব আমি, তারপর একদিন মরে যাব আমি। সিনেমাতে সেটা সম্ভব নয়, কারণ এখানে অনেক কিছুই করা যায়।”

তিনি আরও জানান, ”যখন প্রথম বলিউডে আসি মানুষ আমাকে বিদ্রুপ করত, ঠাট্টা করত আমাকে নিয়ে। কেমন দেখতে আমি? সেটা নিয়ে একাধিকা আলোচনা করত সবাই। অনেকেই বলত আমাকে নায়কের মতো নয় নায়িকার মতো দেখতে। খুবই খারাপ কণ্ঠস্বর আমার। তাই মাঝে মাঝে ইংরেজিতে কথা বলতাম আমি।” কাজের কথা বলতে সইফ আপাতত ব্যস্ত তাঁর আগামী সিনেমা ‘তানহাজিঃ দ্য আনসুইং হিরো’ নিয়ে। অজয় দেবগণের এটি ১০০ তম সিনেমা। যেখানে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে সইফ আলি খানকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here