ডেস্ক: আর কিছুক্ষণের অপেক্ষা মাত্র, তারপরই গুরুত্বর্পূণ বৈঠকে মিলিত হবেন বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ এবং শিবসেনা সুপ্রিমো উদ্ধব ঠাকরে৷ শরিক শিবসেনার অভিমান ঘোচাতেই যে উপযাচক হয়ে অমিত শাহ বৈঠকে বসছেন, তা দিনের আলোর মতো পরিস্কার৷ কিন্তু বৈঠকের আগে অনেকটাই ব্যাকফুটে অমিত শাহ৷ শিবসেনা যে কৌশলগতভাবে বিজেপিকে চাপে রাখবে সেটা বুঝে উঠতে পারেননি অমিত শাহ৷ শিবসেনার মুখপাত্র ‘সামনা’ শরিকি সমস্যার জন্য নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহকেই দায়ী করল।

‘সামনা’ পত্রিকায় প্রকাশিত খবরটি নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহকে যথেষ্ট চাপে রাখবে এবং অস্বস্তিতে ফেলবে তা বলাই বাহুল্য৷ ‘সামনা’ লিখছে, ‘‘উপনির্বাচনে পরাজয়ের পর কেন শরিকদের সঙ্গে কথা বলছেন অমিত শাহ?’ ‘সামনা’ আরও স্পষ্ট করে বলে দিয়েছে, ‘‘২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনে শিবসেনা পৃথকভাবেই লড়বে।’ বিজেপিকে চাপে রাখতে বৈঠকের আগে এটা যে শিবসেনার কৌশলী চাল, বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয় অমিত শাহেরও৷

উল্লেখ্য, শিবসেনা-টিডিপি’র মতো শরিক দলগুলি আগেই বিদ্রোহ করে কার্যত জোট ছেড়েছে৷ সদ্যসমাপ্ত দেশজুড়ে ১৫টি উপনির্বাচনেও বিরাট ধাক্কা খেয়েছে বিজেপি। খারাপ সময়ে বড় শরিকের পাশে দাঁড়ানো তো দূরস্ত, পরিবর্তে বিহারের রামবিলাস পাসোয়ান, নীতীশ কুমারের মতো নেতারা এখন থেকেই চাপ বাড়াতে শুরু করেছেন৷ পঞ্জাবের অকালি দলের সঙ্গেও দূরত্ব বাড়ছে বিজেপির৷ ঠিক সেই সময়ে কেন্দ্রের জোটসঙ্গী হয়েও মহারাষ্ট্রের পালঘর কেন্দ্রের উপনির্বাচনে বিজেপির বিরুদ্ধে প্রার্থী দিয়েছিল শিবসেনা। ভোটের প্রচারে শিবসেনা শীর্ষনেতা উদ্ধব ঠাকরে বলেছিলেন, ‘‘বিজেপিকে বালসাহেব ঠাকরে অনেক সহ্য করেছিলেন। কিন্ত এখন আমরা আর সহ্য করব না।’’ শিবসেনার আরেক নেতা বিজেপিকে তো তাদের প্রধান শত্রু ঘোষণা করতে পিছপা হয়নি৷

বিজেপির সঙ্গে শরিকদের অশান্তি বাড়ার জন্য সরাসরি মোদী-অমিত শাহকে কাঠগড়ায় তুলেছে ‘সামনা’৷ তাদের বক্তব্য, ‘শরিকি সমস্যা মেটাতে ব্যর্থ হয়েছেন মোদী এবং অমিত শাহ। বিজেপি ব্যবসায়িক হিসেবে নিয়ে চলছে, তাই তাদের সঙ্গে সাধারণ মানুষের যোগসূত্র ক্রমেই আলগা হয়ে আসছে।’

ঠিক সেই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে বুধবার রাতে শিবসেনার সঙ্গে বৈঠক করবেন অমিত শাহ৷ আগামী বছরের লোকসভা নির্বাচনে আগে সবচেয়ে পুরনো শরিকের দাবিদাওয়া মেনে নিয়ে বিজেপি কতটা অভিমান ভাঙাতে পারে এখন সেদিকেই নজর রাজনৈতিক মহলের৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here