kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: ৩৭০ ধারা লোপ নিয়ে কংগ্রেসের কোনও সমস্যা নেই৷ তবে যে ভাবে তা তুলে নেওয়া হল সেই পদ্ধতির সমালোচনা করি আমরা৷ এমনটাই বললেন কেরলের তিনবারের কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুর৷ সম্প্রতি তিনি দ্য হিন্দু ওয়ে নামে একটি বই লিখেছেন৷ সেই প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি একটি জাতীয় ইংরাজি দৈনিককে জানান, মোদী সরকারের সঙ্গে পাকিস্তানের কোনও পার্থক্য নেই৷ অধিকৃত কাশ্মীরে বলোচদের সঙ্গে পাকিস্তান যেমন নৃশংস আচরণ করে ঠিক তেমনটাই কাশ্মীরীদের সঙ্গে করছে মোদী প্রশাসন৷

শশীর কথায়, স্বাধীন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু পর্যন্ত বলেছিলে ৩৭০ ধারা চিরকালের জন্য নয়৷ তিনি এও বলে গিয়েছিলেন যতদিন প্রয়োজন ততদিন ৩৭০ ধারা বজায় রাখতে৷ এই জন্য এই ধারাকে সংবিধানে অস্থায়ী ধারা হিসাবে নথিভুক্ত করা হয়েছিল বলে জানান শশী৷ তাঁর সোজা কথা, যে ভাবে কাশ্মীরের স্থানীয় দলের সঙ্গে পরামর্শ না করে ৩৭০ ধারা লোপ করা হয়েছে তা সংবিধানের ধর্ম নিরপেক্ষ ভাবনাকে প্রবলভাবে কুঠারাঘাত করেছে৷ ঠিক এই কারণেই প্রথম থেকেই কংগ্রেস এর বিরোধিতা করছে বলে জানান তিনি৷সেই সঙ্গে তিনি স্পষ্ট জানান, কংগ্রেস বরাবর বিশ্বাস করে জম্মু-কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ৷

অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে রামমন্দির তৈরিকে সমথর্ন করলেন কংগ্রেসের সাংসদ শশী থারুর৷ তবে  তিনি মনে করেন ধর্মীয় বিশ্বাসকে গুরুত্ব দিয়ে রামমন্দির তৈরি হোক৷ তবে তা কখনওই মসজিদের ওপর করা ঠিক নয়৷ তিনি মনে করেন ধর্মীয় নিরপেক্ষতা মানে ধর্মীয় সহিষ্ণুতা৷ তাঁর কথায়, যদি প্রমাণিত হয় অযোধ্যার ওই জমিতে রামমন্দির ছিল তবে সেখানে মন্দির হতেই পারে৷ পাশপাশি তিনি মনে করেন রাজ্য সরকাররে হাতে মন্দির, মসজিদ, গির্জা প্রভৃতি তুলে দেওয়া উচিত৷ তাঁর মতে, সব ধর্মকে সমানভাবে গুরুত্ব দেওয়া উচিত কেন্দ্রীয় সরকারের৷ তাঁর কথায়, বহুত্ববাদী ভারতীয় সমাজে সংখ্যালগুদের বিশেষভাবে নজর দেওয়া দরকার৷ তা না হলে ভারতীয় সমাজ ব্যবস্থা ভেঙে পড়বে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন শশী থারুর৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here