kolkata bengali news

ডেস্ক: আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে আমেঠির পাশাপাশি কেরলের ওয়েনাদ থেকেও প্রার্থী হিসাবে দাঁড়াবেন রাহুল গান্ধী। কংগ্রেস সভাপতির এই সিদ্ধান্তের পর সমালোচনা শুরু হয়েছে গোটা রাজনৈতিক মহলে। বিরোধীরা কটাক্ষ করতে শুরু করেছেন যে, ভয় পেয়েই উত্তরপ্রদেশ থেকে কেরলে ‘পালিয়ে’ গিয়েছেন রাহুল। তবে এইসব বক্তব্যকে কার্যত হেলায় উড়িয়ে দিয়েছেন কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুর। তাঁর কথায়, রাহুল গান্ধী আদতে এটাই দেখাতে চাইছেন যে তিনি পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার যোগ্য।

রাহুলের সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশংসায় পঞ্চমুখ শশী। বলেন, উত্তর-দক্ষিণ, কার্যত গোটা ভারতবর্ষেই নিজেকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন রাহুল। এই সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে একহাত নিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি বলে মন্তব্য থারুরের। তাঁর দাবি, সকলেই জেনে গেছে মোদীর জেতার আর কোনও সম্ভাবনা নেই। আর বিজেপিরও বোঝা উচিৎ দেশে শাসন করতে গেলে দেশকে চিনতে হবে, জানতে হবে। কিন্তু বিজেপির এইদেশে কিছুটা জায়গাই রয়েছে। তিনি প্রশ্ন তোলেন, নরেন্দ্র মোদীর কি ক্ষমতা রয়েছে উত্তর-দক্ষিণ দুই জায়গা থেকেই জয় পাওয়া?

উল্লেখ্য, কংগ্রেসের তরফে রাহুল গান্ধীকে নিয়ে এই ঘোষণা পর তীব্র কটাক্ষ করেছে বিজেপি। তাঁদের দাবি, আমেঠিতে এবার হারবেন বুঝে গিয়ে অন্য জায়গায় সুরক্ষিত আসন খুঁজলেন রাহুল। তিনি হারবেন বুঝে অন্য বিকল্প পথ খুঁজে চলেছেন। বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের বক্তব্য, আমেঠির মানুষের জন্য কখনই কিছু করেননি রাহুল। আর এবার নিজেদের হার নিশ্চিত, সেটা বুঝতে পেরে কেরলে গিয়ে রাজনীতির মেরুকরণ করে জিততে চাইছেন রাহুল। রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেন, ‘রাহুলের আমেঠির জাহাজ ডুবতে বসেছে, তাই ভয় পেয়ে কেরলের ওয়েনাড়ে ঠাঁই খুঁজছেন কংগ্রেস সভাপতি। তবে রাহুলের সিদ্ধান্তে সবচেয়ে বেশি চটেছে বামফ্রন্ট নেতৃত্ব। দক্ষিণে বাম শাসিত রাজ্যের নেতাদের পক্ষে রাহুলের সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়া কঠিন, কারণ কংগ্রেসের সঙ্গে সরাসরি সংঘাত হবে বামেদেরই। এই প্রসঙ্গেই প্রকাশ কারাত বলেন, রাহুলকে হারাতে বিন্দুমাত্র ফাঁকি রাখবেন না তাঁরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here