ডেস্ক: ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে বারাণসীতে নতুন গেম প্ল্যান তৈরি হতে চলেছে। মোদীর বিরুদ্ধেই ভোটে লড়তে ছলেছেন শত্রুঘ্ন সিনহা। এমন খবরই কান পাতলে শোনা যাচ্ছে। তবে এই বিষয়ে কোনও নিশ্চিত খবর এখনও পাওয়া যায়নি। গত লোকসভা নির্বাচনের প্রচারের সময় থেকেই দলের সঙ্গে শুত্রুঘ্নর সংঘাত সকলের নজরে পড়েছে। শুধু তাই নয় বিহারের ভোটের প্রচারের সময়ও সামিল করা হয়নি শত্রুঘ্ন সিনহাকে। যার ক্ষোভে পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন ইস্যুতে সরকারের বিরুদ্ধে কড়া সমালোচনা করতে দেখা গেছে এই অভিনেতাকে। যার ফলেই শত্রুঘ্ন সিনহার দল ছাড়ার খবর আরও প্রকট হয়ে উঠছে।

টাইমস অফ ইন্ডিয়ার একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে সমাজবাদী পার্টির হয়ে ভোটে লড়বেন শত্রুঘ্ন সিনহা। তবে সমাজবাদী পার্টির তরফে জানানো হয়েছে, তাঁকে শিগগির দল ছাড়তে হবে তাহলেই মিলবে ভোটে দাঁড়ানোর টিকিট। শুধু তাই নয় শত্রুঘ্ন সিনহাকে খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরিদ্ধে দাঁড় করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সমাজবাদী পার্টি। এমনিই অভিনেতা হিসাবে জনপ্রিয়তা রয়েছে তাঁর। শুধু তাই নয় বারাণসীর ক্ষত্রিয় সমাজের সমর্থনও শত্রুঘ্ন সিনহা পাবে বলে আশাবাদী দল। সম্প্রতি গুজরাট থেকে উত্তরপ্রদেশের কর্মীদের তাড়িয়ে দেওয়ার ক্ষোভকেও মোদীর বিরুদ্ধে কাজে লাগানো যাবে বলে মনে করা হচ্ছে। অন্যদিকে বৃহস্পতিবার লখনউয়ে এক অনুষ্ঠানে সমাজবাদীর প্রধান অখিলেশ যাদবের সঙ্গে শত্রুঘ্ন সিনিহাকে একই মঞ্চে দেখা গেছে। ফলে এই বিজেপি অভিনেতার সপাতে যোগ দেওয়ার খবর আরও স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে। যা ভোটের আগে প্রধানমন্ত্রীকে বেশ চাপে ফেলতে পারে বলে মনে করছে রাজনোইতিক মহলের একাংশ।

অন্যদিকে, জয়প্রকাশ নারায়ণের জন্মদিবসের অনুষ্ঠানে রাফাল বিমান চুক্তি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন শত্রুঘ্ন। তিনি বলেন রাষ্ট্রায়ত্ত হ্যালকে বাদ দিয়ে কেন রিলায়েন্সকে রাফালের পার্টনার হিসেবে বেছে নেওয়া হল। তিনি বলেন, ‘রাফাল চুক্তি নিয়ে মানুষের মনে অনেক প্রশ্ন রয়েছে। তার জবাব দিতে হবে। এড়িয়ে যাওয়ার কোনও প্রশ্ন নেই। মিগ ও সুখোই যুদ্ধবিমান তৈরির অভিজ্ঞতা রয়েছে হ্যালের। তার পরিবর্তে যাদের এরকম কোনও অভিজ্ঞতাই নেই তাদের কেন রাফালের বরাত দেওয়া হল।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here