kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: জম্মু কাশ্মীরে ৩৭০ ধারার বিলোপ, এবং তার পরবর্তী তরজা। এই দুই মিলিয়ে বিগত কয়েকদিন ধরেই শিরোনামে রয়েছেন উপত্যকার রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক। মাঝে মধ্যে বেশ কিছু আলটপকা মন্তব্য করেও শিরোনামে উঠে আসছেন তিনি। এবার জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীদের গ্রেফতারির সাফাই গাইতে গিয়ে জেলে যাওয়াকে যেন মহান করে তুলে ধরলেন তিনি। জম্মু কাশ্মীরের বিশেষাধিকার হরনের পর থেকে মেহবুবা মুফতি ও ওমর আব্দুল্লাহদের যেভাবে গৃহবন্দি রাখা হয়েছে সেটার সমর্থন করছেন রাজ্যপাল।

বুধবার এক সাংবাদিক বৈঠকে উপত্যকার পরিস্থিতি এবং সক্রিয় রাজনীতিবিদদের গ্রেফতারী প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হয় রাজ্যপালকে। উত্তরে তিনি যা বলেন তা রীতিমতো স্তম্ভিত করে দেওয়ার মতো। সত্যপালের কথায়, ‘আপনারা কি চান না কেউ বড় নেতা হোক? আমি নিজে ৩০ বার জেলে গেছি। যারা জেলে যাবেন, তারাই নেতা হতে পারবেন। ওদের ওখানেই থাকতে দিন। জেলে ওরা যত সময় কাটাবেন, নির্বাচনের সময়ও তত বড় গলায় ভোট চাইবেন এটা বলে যে আমি এত মাস জেলে কাটিয়েছি…’

সত্যপাল আরও বলেন, ‘সুতরাং আপনারা যদি তাদের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করেন তবে আটকের কারণে দুঃখ করবেন না। এবং তারা সবাই তাদের বাড়িতে। জরুরি অবস্থার সময় আমি ফতেহগড়ে কারাগারে ছিলাম যেখানে পৌঁছতে দু’দিন সময় লাগত। যদি কোনও বিষয়ে কাউকে আটক করা হয়, সে যদি জ্ঞানী হয় তবে সে রাজনৈতিক সুবিধা নেবে। আমি তাদের ভাল কামনা করছি।’ অর্থাৎ পরোক্ষে জেলযাত্রাকে সমর্থন করার পাশাপাশি এর রাজনৈতিক ফায়দা তোলারও বার্তা জানান জম্মু কাশ্মীরের রাজ্যপাল।

অগস্ট মাসের ৫ তারিখ রাজ্যসভায় পেশ করা হয়েছিল জম্মু কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা বিলোপ সংক্রান্ত বিল। তার আগের দিন থেকেই গৃহবন্দি রাখা হয়েছে দুই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আব্দুল্লাহ এবং মেহবুবা মুফতিকে। কেন্দ্রশাসিত জম্মু কাশ্মীরে এখনও স্বাধীনতা পাননি তারা। এই নিয়ে বিরোধীরা কেন্দ্রকে কম কটাক্ষ করতে ছাড়েনি। কিন্তু যা করা তা একদম সঠিক সিদ্ধান্ত বলেই মনে করছেন রাজ্যপাল। উল্টে জেলে থাকার রাজনৈতিক লাভও লুটে নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে ফেলেছেন তিনি।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here