kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ) নিয়ে তোলপাড় দেশ৷ যার আঁচে জ্বলছে বাংলা থেকে দিল্লি৷ অসম সহ উত্তর পূর্বে প্রথম সিএএ বিরোধী মিছিল হিংসার আকার নেয়৷ সাত দিনে শুধু অসমে জনতা- পুলিশ সংঘর্ষে স্কুল পড়ুয়া সহ ৭ জন মারা গিয়েছে৷ সেই আঁচ পৌছে গিয়েছে রাজধানী দিল্লিতে। গতকাল জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়ার পড়ুয়াদের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে পুলিশের৷ এই সংঘর্ষে দুপক্ষের লোক আহতও হয়েছে৷ ঘটনায় ৫০০ পড়ুয়ার নামে এফআইআর করেছে পুলিশ৷ এদের মধ্যে ৫১ জনকে রবিবার রাতে আটক করেছিল দক্ষিণ দিল্লির পুলিশ৷ সোমবার সকালে তাদের ছেড়ে দিয়েছে৷ গতকাল দুপুরেই জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে পরপর তিনটি বাসে আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষোভকারীরা। যদিও সেই ঘটনায় যে পুলিশ দায়ী সেই নিয়ে শুরু হয়েছে চাপানউতোর।

এদিকে ছাত্রছাত্রীদের উপর এহেন বর্বরচিত আচরনের জন্য তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন অভিনেত্রী-পরিচালক অপর্ণা সেন। সিএএ ও নাগরিক পঞ্জিকার বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ গণ আন্দোলনের ডাক দিয়ে পড়ুয়াদের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি। এদিন ট্যুইটে জানিয়েছেন, ”ভারতের দেওয়ালে লেখাই আছে, আমরা সাভারকারের দেশ চাই না। ভারতের যুব সমাজ হুঙ্কার দিচ্ছে। ইতিমধ্যেই দেশের সাতটি রাজ্য এই আইন গ্রহণ করবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। লজ্জা হওয়া উচিত প্রশাসনের যারা ছোট ছোট পড়ুয়াদের গায়ে হাত তুলেছেন। আমি ওই ছাত্র-ছাত্রীদের পাশে আছি।”


সূত্রের খবর, গতকালের ঘটনার জন্য এই পড়ুয়াদের মধ্যে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন৷ কেন্দ্রীয় সংখ্যালঘু দফতর পুলিশকে এইসব আহত ছাত্র ছাত্রীদের দিল্লির ভাল হাসপাতালে ভর্তি কারার নির্দেশ দিয়েছে৷ এদিকে সোমবার পৌনে দশটা নাগাদ সুপ্রিমকোর্টের ১ নম্বর গেটের সামনে শীর্ষ আদালতের আইনজীবীরা সিনিয়র আইনজীবী ইন্দিরা জয়সিংহের নেতৃত্বে জমায়েত হয়েছেন৷ ইন্দিরা জামিয়ার পড়ুয়াদেরর ওপর পুলিশি হামলার তীব্র নিন্দা করেছেন৷ সেই সঙ্গে তিনি বিষয়টি শীর্ষ আদালতকে স্বতপ্রণোদিতভাবে (সুটোমোটো) দেখার আর্জি জানিয়েছেন৷ কংগ্রেসের রাজ্যসভার নেতা গুলাম নবি আজাদ সোমবার জামিয়ায় ভিসির বিনা অনুমতিতে ঢুকে হামলা চালানোর তীব্র নিন্দা করেন৷ তাঁর প্রশ্ন, জনবিরোধী সিএএর বিরোধিতা করার গণতান্ত্রিক অধিকার সবার আছে৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here