ডেস্ক: মমতা ও চামলিং বৈঠকের দিনই আরও বিপাকে পড়ল ‘পাহাড়ের বাপ’ বলে নিজেকে দাবি করা মোর্চা নেতা বিমল গুরুং। এর আগে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে সুপ্রিমকোর্টে মামলা করে গ্রেপ্তারির হাত থেকে বাঁচতে কিছুটা আশার আলো দেখেছিলেন বিমল গুরুং। কিন্তু এবার বিপদ বাড়ল গুরুংয়ের। শুক্রবার রাজ্যের বিরুদ্ধে করা বিমল গুরুংয়ের মামলা খারিজ করে দিল সুপ্রিমকোর্ট। সুতরাং তাঁর বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ নিতে আর কোনও বাঁধা থাকল না রাজ্য সরকারের।

সুপ্রিমকোর্টে গুরুংয়ের মামলা ছিল। দার্জিলিংয়ে অশান্তির সময় ক্ষমতার অপব্যবহার করেছে রাজ্য। কিন্তু এদিন সুপ্রিমকোর্ট স্পষ্ট জানিয়ে দেয় সেখানে কোনও ক্ষমতার অপব্যবহার করা হয়নি। আর সেহেতু শীর্ষ আদালতে নাচক হয়ে যায় গুরুংয়ের আর্জি। উল্লেখ্য, দার্জিলিংয়ে অশান্তির পিছনে মূল কারিগর ছিলেন মোর্চা নেতা বিমল গুরুং। সেই ঘটনায় তাঁর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হওয়ায় রাজ্য ছেড়ে পালিয়ে সিকিমের ছত্র ছায়ায় গা ঢাকা দিয়েছেন গুরুং। শুধু তাই নয়, গুরুংয়ের পক্ষে গিয়ে সিকিম বিধানসভায় গোর্খাল্যান্ডের দাবিকে সমর্থন করে সিকিম সরকার। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে নিজেদের অবস্থান থেকে পিছু হঠে চামলিং সরকার। তখন বাধ্য হয়ে সিকিম ছেড়ে দিল্লি চলে আসেন বিমল গুরুং। পলাতক গুরুংয়ের গ্রেপ্তারি যখন প্রায় নিশ্চিত ঠিক সেই সময় রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করেন তিনি। শীর্ষ আদালতের রায়ে কিছুটা হলেও স্বস্তি পায় বিমল গুরুং। তবে এবার সেই মামলা শীর্ষ আদালত খারিজ করে দেওয়ার, গুরুংয়ের বিপদ নিশ্চিত ভাবেই বাড়ল।

এদিকে আজই সিকিমের মুখ্যমন্ত্রী পবন চামলিংয়ের সঙ্গে উত্তরকন্যায় বৈঠকে বসতে চলেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে গুরুংকে নিয়েও আলোচনা হতে পারে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। অন্যদিকে, শীর্ষ আদালতের এই রায় শোনার পর উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী গৌতম দেব জানান, ‘এই রায়ে আমরা খুশি। সুপ্রিমকোর্টের এই রায়ের পর এবার গুরুংয়ের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here