ডেস্ক: সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহাসিক রায়ে তিন তালাককে অবৈধ ঘোষণা করার পর এবার শীর্ষ আদালতের নজরে আরও দুই মুসলিম প্রথা। বহুবিবাহ ও নিকাহ হালালার মতো প্রথাগুলি নিয়ে একটি জনস্বার্থ মামলার ভিত্তিতে বিষয়টি নিয়ে পর্যালোচনা করতে সম্মত হয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। একই সঙ্গে প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রর নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার এবং আইন কমিশনের মতামত জানতে চেয়েছে।

তিন তালাকের মতোই মুসলিম সমাজের এই দুই প্রথাকে অপরাধ হিসাবে গণ্য করার দাবি নিয়ে সুপ্রিম আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন নাফিসা খান। সোমবার সেই মামলার শুনানি চলাকালীন এই নিয়ে কেন্দ্রের মতামত জানতে চায় আদালত। সুপ্রিম আদালতের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ এই মামলাটি পর্যালোচনা করবে। প্রধান বিচাপরতি দীপক মিশ্র ছাড়াও এই বেঞ্চে রয়েছেন বিচারপতি এএম খানউলিকর ও ডিওয়াই চন্দ্রচূড়। এই মামলার পরবর্তি শুনানির দিন ২৬ মার্চ ঠিক করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, মুসলিম সমাজে এক মুসলমান স্বামী একসঙ্গে চারজন স্ত্রী রাখতে পারে। এটি হল বহুবিবাহ প্রথা। নিকাহ হালালা প্রথাটি অবশ্য একটু জটিল। সেই প্রথা অনুসারে কোনও মুসলিম স্ত্রী’র যদি নিজের স্বামীর সঙ্গে তালাক হয়ে গিয়ে থাকে এবং তিনি পুনরায় নিজের স্বামীর কাছে ফিরে যেতে চান তা তিনি পারবেন না। এই ক্ষেত্রে অন্য কোনও পুরুষের সঙ্গে তাঁকে নিকাহ অর্থাৎ বিয়ে করে তাঁর সঙ্গে কমপক্ষে ৩ মাস সহবাস করতে হবে। তারপরই সেই স্বামী তাঁকে তালাক দিলে তখনই সেই মহিলা নিজের আগের স্বামীর কাছে ফিরে যেতে পারবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here