mukesh bengali news

Highlights

  • ভারতের টেলিবাজার দখলে সুবিধেজনক অবস্থায় জিও টেলিকম সংস্থা
  • ভোডাফোনের অবস্থা নিয়ে উদ্বিগ্ন টেলিকম বিশেষজ্ঞ মীনাক্ষি ঘোষ
  •   মুকেশ আম্বানির জিও টেলিকম সংস্থা ভারতীয় টেলিকম বাজারের ৩২ শতাংশ দখলে রেখেছে৷

মহানগর ওয়েবডেস্ক:  ১৩০ কোটি দেশের টেলি বাজার দখলের প্রচেষ্টায় অনেকটাই এগিয়ে এশিয়ার ধনীতম ব্যক্তি মুকেশ আম্বানি৷ তাঁর টেলিকম সংস্থা জিও বর্তমানে ভারতীয় টেলিবাজারে প্রথম স্থানে আছে৷ তারা একাই নিয়ন্ত্রণ করে ৩২ শতাংশ টেলি বাজার৷ তবে এই বাজারেরর সাপ-লুডোর দৌড়ে আপাতত নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ভোডাফোন ও এয়ারটেলকে ছাপিয়ে কয়েক যোজন এগিয়ে গেল জিও৷ যা পরিস্থিতি তাতে এগিয়ে জিও, আর বেশ ব্যাকফুটে ভোডাও এয়ারটেল৷ এতটাই যে রীতিমতো ধুঁকছে এই দুই টেলি সংস্থা৷এর আগে এই দুই টেলি সংস্থা আদালতের কাছে কিস্তিতে বিপুল পরিমাণ বকেয়া টাকা ফেরতের আবেদন জানিয়েছিল৷ তাদের সেই আবেদনও খারিজ করে দিয়েছিল শীর্ষ আদালত৷

রিলায়েন্স,ভোডাফোন, আইডিয়া, এয়ারটেল সহ সরকারি সংস্থা বিএসএনএল পর্যন্ত প্রতিটি টেলি সংস্থার কাছ থেকে টেলি পরিষেবা বাবদ কেন্দ্রীয় সরকার একলাখ কোটি টাকা পায়৷ এরা কেউই এই বিপুল পরিমান টাকা কেন্দ্রকে দেয়নি৷ এই নিয়ে চলছে মামলা৷ সুপ্রিমকোর্ট সম্প্রতি জিওর চেয়ে পুরানো ভোডাফোন ও এয়ারটেলকে যথাক্রমে ৩.৯ ও ৩ বিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে৷ সেখানে অপেক্ষাকৃত নয়া মুকেশ আম্বানির জিও’র জরিমানা হয়েছে মাত্র ২ মিলিয়ন ডলার৷

সুপ্রিমকোর্টের এমন নির্দেশে সবচেয়ে বিপাকে পড়বে ভোডাফোন৷ এমনটাই আশঙ্কা টেলি বিশেষজ্ঞ মীনাক্ষি ঘোষের৷ তাঁর কথায়, এয়ারটেলের অসুবিধা হলেও এই ঝুঁকি সামলে নেবে৷ উল্লেখ্য এই রায়ের পরে ভোডাফোন আইডিয়া সংস্থার পক্ষে পরিস্থিতির জটিলতার কথা স্বীকার করে নিয়েছে৷ একসময় এমন গুজব রটেছিল ভোডাফোন যে কোনও মুহূর্তে বন্ধ হয়ে যেতে পারে৷ অন্যদিকে পরিস্থিতি উদ্বেগজনক হলেও পরিস্থিত সামলে নিতে পারবে বলে মনে করছে ভারতি এয়ারটেল৷মীনাক্ষির মতে, কোনও টেলিকম সংস্থার একচেটিয়া বাজার দখল সুস্থ বাজারের ক্ষেত্রে একেবারেই ভাল বিজ্ঞাপণ নয়৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here