মহানগর ডেস্ক: পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ জানাতে কিছুদিন আগেই ইলেকট্রিক স্কুটারে চড়ে নবান্নে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিকালে ফেরার পথে নিজের হাতেই ‘স্টিয়ারিং’ তুলে নিয়েছিলেন মমতা। আর সেখানেই বিপত্তি। স্কুটারে অনভ্যস্ত মমতা প্রায় পড়ে যেতে যেতেও এড়িয়ে গিয়েছিলেন বিপদ। ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় বিজেপি নেতারা বলেছিলেন, ‘মমতা সরকারও চালাতে পারেন না, স্কুটার ও পারেন না।’ এবার সেই ঘটনার রেশ টেনে ব্রিগেডের সভা থেকে মমতাকে তীব্র ভাষায় কটাক্ষ করলেন মোদি।

এদিনের সভা থেকে মমতাকে কার্যত বিদ্রুপের সুরে মোদি বলেন, ‘আপনি শুধু বাংলার নয়, সারা দেশের মেয়ে। কিছুদিন আগেই স্কুটি চালাতে গিয়ে বিপদে পড়েছিলেন। ভাগ্গিস পড়ে যাননি! নাহলে যে রাজ্যে স্কুটি তৈরি হয়েছে সেই রাজ্যকেই নিজের শত্রু বানিয়ে নিতেন!’ মোদির এই বক্তব্যের পরেই হাসিতে ফেটে পড়েন মোদি সমর্থকেরা।

এদিকে একুশের বিধানসভা নির্বাচনে ভবানীপুরের বদলে নন্দীগ্রাম থেকে ভোটে দাঁড়ানোর কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা। ‘স্কুটি-কাণ্ডের’ রেশ টেনে মমতাকে তীব্র ভাষায় কটাক্ষ করে মোদি বলেন, ‘ভবানীপুরের দিকে যেতে যেতে নন্দীগ্রামের দিকে ঘুরে গিয়েছে আপনার স্কুটি। আমি তো সবার ভালো চাই। কিন্তু স্কুটি নন্দীগ্রামে পড়তে চাইলে আমি কি করতে পারি!’

এদিনের সভায় মোদিকে ঘিরে সমর্থকদের মধ্যে উন্মাদনা ছিল চোখে পড়ার মতো। প্রধানমন্ত্রী মঞ্চে উঠতেই ‘মোদি’ ‘মোদি’ ধ্বনিতে চিৎকার করতে থাকেন বিজেপি সমর্থকেরা। আর কুড়ি দিন পরেই বাংলায় শুরু হতে চলেছে প্রথম দফায় নির্বাচন। তার আগেই তৃণমূলকে একাধিক ইস্যুতে তুলধনা করতে ব্রিগেডের মঞ্চকেই বেছে নিলেন মোদি। এদিন তৃণমূলের দুর্নীতি, কাটমানি, সিন্ডিকেট, বেকারত্ব, হিংসা, অন্যায়, সন্ত্রাস সহ একাধিক বিষয়ে সরব তৃণমূলের প্রতি আক্রমণ শানালেন প্রধানমন্ত্রী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here