kolkata news

নিজস্ব প্রতিনিধি : বেডে পড়ে রোগীর মোবাইল। এদিকে রোগী বেপাত্তা। বিস্তর খোঁজাখুঁজির পরেও রোগীর হদিশ মিলল বটে, তবে ততক্ষণে মারা গিয়েছেন ওই করোনা রোগী। জলপাইগুড়ির বিশ্ববাংলা কোভিড হাসপাতালের ঘটনায় চাঞ্চল্য। হাসপাতালের বিরুদ্ধে নিরাপত্তায় গাফিলতির অভিযোগে সরব মৃতের পরিবার।

জানা গিয়েছে, দিন কয়েক আগে জলপাইগুড়ির বিশ্ববাংলা কোভিড হাসপাতালে ভর্তি হন জনৈক নুকুরু রায়। বছর বাষট্টির ওই ব্যক্তি সেখানেই চিকিৎসাধীন ছিলেন। জলপাইগুড়ির চালসার পূর্ব বাতাবাড়ি এলাকার বাসিন্দা ছিলেন তিনি। প্রথমে তিনি ছিলেন চালসা সেফ হোমে। করোনা সংক্রমিত হওয়ায় তাঁকে স্থানান্তরিত করা হয় ওই হাসপাতালে।  পরিবারের দাবি, নুকুরুর সঙ্গে দিন কয়েক আগে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও, তিনি ফোন তোলেননি। পরিবারের সদস্যরা দ্রুত চলে আসেন জলপাইগুড়ির ওই হাসপাতালে। বেডে গিয়ে দেখেন, নুকুরু বেডে নেই। পড়ে রয়েছে তাঁর মোবাইল ফোনটি। শুরু হয় খোঁজাখুঁজি। অভিযোগ দায়ের করা হয় জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের কাছে।

এদিকে, বৃহস্পতিবার রাজগঞ্জের ফাটাপুকুর এলাকায় স্থানীয়রা নুকুরুকে ঘোরাঘুরি করতে দেখেন। সন্ধের সময় লুটিয়ে পড়েন। তাঁকে তুলে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করা হয় রাজগঞ্জ গ্রামীণ হাসপাতালে। হাসপাতালের নিরাপত্তার ফাঁক গলে নুকুরু কীভাবে বেড থেকে পালালেন, সে প্রশ্ন তুলেছেন তাঁর আত্মীয়-পরিজনেরা।  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here