kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, বাঁকুড়া: লকডাউনে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর দোকান খোলা থাকলেও বন্ধ রয়েছে সরকারি অনুমতিপ্রাপ্ত সমস্ত মদের দোকান। এই সময় একটু লুকিয়ে চুরিয়ে মদ বিক্রি করতে পারলে মোটা অঙ্কের মুনাফা হবে। ভাবনাটা খারাপ ভাবেননি বাঁকুড়ার সারেঙ্গা থানার বামুনডিহা গ্রামের এক স্কুল শিক্ষিকার স্বামী কল্যাণ সিং। কিন্তু গ্রামবাসীদের তৎপরতায় ভেস্তে গেল সব পরিকল্পনা। পুলিশ ডেকে কল্যাণ সিংকে হাতেনাতে ধরিয়ে দিলেন গ্রামের মানুষ। ধৃতের বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছে মজুত কয়েক লক্ষ টাকার দেশি ও বিদেশি মদ।

রাজ্যে লকডাউন ঘোষণার পর থেকেই বামুনডিহা গ্রামের বাসিন্দা কল্যাণ সিং-এর বাড়িতে পরিচিত ও অপরিচিত লোকের আনাগোনা বাড়ছিল। বিষয়টি নজর এড়ায়নি স্থানীয় বাসিন্দাদের। এরই মধ্যে গ্রামের মানুষ একটু চোখ কান খোলা রেখে বুঝতে পারেন বেআইনি ভাবে কল্যাণ সিং-এর বাড়ি থেকে চড়া দামে বিক্রি করা হচ্ছে দেশি ও বিদেশি মদ। তক্কে তক্কে ছিলেন গ্রামের মানুষও।

আজ সুজিত মণ্ডল নামে স্থানীয় এক ব্যাক্তি কল্যাণ সিং-এর বাড়িতে ঢুকে মদ কিনে বেরিয়ে আসছিলেন। এরপরই গ্রামবাসীরা ঘিরে ধরেন তাঁকে। ফাঁস হয়ে যায় মদ বিক্রির রহস্য। এরপর স্থানীয়রাই সারেঙ্গা থানার পুলিশ ডেকে গোপনে মদ কিনতে আসা সুজিত মণ্ডল,  মদ বিক্রেতা কল্যাণ সিং ও তাঁর বাবা তনু সিংকে পুলিশের হাতে তুলে দেন। সারেঙ্গা থানার পুলিশ ধৃত কল্যাণ সিং-এর বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে মজুত থাকা কয়েক লক্ষ টাকার মদ বাজেয়াপ্ত করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here