পরিবারের ছয় জনকে খুন! ক্লোড ব্লাডেড সিরিয়াল কিলার জলি জোসেফকে জেরায় বিস্ফোরক তথ্য়

0
426
kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: চেহারা দেখলে বোঝার উপায় নেই কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে এই মহিলা৷ বছর সাতচল্লিশের জলি জোসেফ৷ কেরলের কোকিঝোড়ের বাসিন্দা জলি একে একে খুন করেছেন নিজের পরিবারকে৷ কোল্ড ব্লাডেড সিরিয়াল কিলার জলিকে দেখে এতদিন তা কোনওভাবে বোঝার উপায় না থাকলেও সম্প্রতি তাকে গ্রেফতার করার পরই একে একের প্রকাশ্যে আসছে চাঞ্চল্যকর খুনের তথ্য৷ সিরিয়াল কিলার জলি জোসেফ এখনও পর্যন্ত খুন করেছে ছ জনকে৷ নিজের পরিবারের আরও দুই শিশুকে খুনের পরিকল্পনা করছিল সে৷

শনিবার জলিকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ এরপরই শুরু হয় পুলিশের ম্যারাথন জেরা৷ সেই জেরাতেই পুলিশ জানতে পারে,জলির প্রথম টার্গেট ছিল তাঁর শাশুড়ি অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষিকা আন্নাম্মা থমাস৷ তাঁকে সায়নাইড মেশানো খাবার খাইয়ে খুন করে জলি৷ তবে সকলে ভেবেছিল স্বাভাবিক মৃত্যুই হয়েছে আন্নাম্মার৷ ২০০২ সালে ঘটে এই ঘটনা৷ এর ঠিক ছয় বছর পর নিজের শ্বশুর টম থমাসকেও একইভাবে খুন করে জলি৷ এর থেকে তিন বছরের মাথায় মারা যান জলির স্বামী রয়৷ তবে তাঁর স্বামীর মৃত্যু পর দেহ ময়নাতদন্তে করার পর প্রথম সন্ধান মেলে বিষের৷ তবে সেসময় বিষয়টি নিয়ে জলঘোলা হয়নি৷

স্বামী মৃত্যুর কিছু বছর পর তাঁর খুড়তুতো ভাই সাজুকে বিয়ে করে জলি। ইতিমধ্যে একই ভাবে আকস্মিক মৃত্যু হয় রয়ের মামারও। তা ছাড়াও, সাজুকে জলির বিয়ে করার কিছু দিনের মধ্যেই মৃত্যু হয় সাজুর প্রাক্তন স্ত্রী সিলি এবং তাঁদের মেয়ে আলপাইনের। সেটা ২০১৬ সালের এই মৃত্যুতেও সন্দেহজনক কিছু মনে হয়নি পরিবারের বাকি সদস্যদের। তবে পরিবারের একের পর এক সদস্যের মৃত্যুতে সন্দেহ জাগতে থাকে সাজুর এক ভাইয়ের মনে। তাঁর অভিযোগ ছিল সব কটি মৃত্যুর ক্ষেত্রে কমন ফ্যাক্টর ছিল জলি জোসেফ৷ তার অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করে পুলিশ৷ বিশেষ তদন্তকারী দল (সিট) গঠন করেছে কেরল পুলিশ। তবে জলিকে এখন পর্যন্ত গ্রেফতার করা হয়েছে স্বামী রয়ের মৃত্যুর ঘটনার অভিযোগে। কারণ একমাত্র ওই ঘটনায় বিষের অস্তিত্ব পাওয়া গিয়েছিল। বাকিদের দেহ কবর থেকে তোলার ব্যবস্থা করেছে পুলিশ ।

এসব শুনে আপনার মনে প্রশ্ন জাগতেই পারে সায়ানাইড বিষের জোগান কোথা থেকে পাচ্ছিল জলি? পুলিশ জানিয়েছে,গ্রেফতার করা হয়েছে তার দুই পরিচিত এম ম্যাথিউ এবং প্রাজু কুমারকে। তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, গয়না তৈরির কারখানার কর্মী প্রাজু সায়ানাইড পৌঁছে দিত ম্যাথিউয়ের কাছে। ম্যাথিউয়ের কাছ থেকে তা হাতে আসত জলির।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here