মহানগর ডেস্ক: চাকরি দেওয়ার নাম করে এক তরুণীকে ‘যৌন হেনস্থার’ অভিযোগে এবার পদত্যাগ করতে বাধ্য হলেন কর্ণাটকের জলসম্পদ মন্ত্রী রমেশ জারকিহোলি। বুধবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদুরাপ্পাকে পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে তা গ্রহণের আবেদন জানান মন্ত্রী।

মঙ্গলবার রমেশ জারকিহোলির একটি ভিডিও ও অডিও ক্লিপ প্রকাশ্যে আসতেই শুরু হয় প্রবল বিতর্ক। ওই ভিডিও টি দেখা যাচ্ছে যে এক মহিলাকে সরকারি চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে যৌন প্রস্তাব দিচ্ছেন ওই মন্ত্রী। দীনেশ কাল্লাহাল্লি নামে কর্ণাটকেরই এক সমাজকর্মী ভিডিওটি সংবাদমাধ্যমের হাতে তুলে দেন বলে জন গিয়েছে। এরপরেই ওই তরুণীর তরফে মন্ত্রীর বিরুদ্ধে বেঙ্গালুরুর কাব্বান পার্ক থানায় ‘যৌন হেনস্থার’ অভিযোগ দায়ের করেন ওই সমাজকর্মী।

এদিন পদত্যাগপত্রে বিজেপি মন্ত্রী লেখেন, ‘আমার বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা। আমি ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্তের দাবি জানাচ্ছি। নৈতিক জায়গা থেকে আমি পদত্যাগ করছি।’ সূত্রের খবর, ‘যৌন হেনস্থার’ ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই অভিযুক্ত মন্ত্রীকে পদত্যাগের জন্য চাপ দেওয়া হয় বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের তরফ থেকে। কর্ণাটকের আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচন এবং পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখেই ওই মন্ত্রীকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করেছে সর্বভারতীয় বিজেপি নেতৃত্ব।

অন্যদিকে আগামীকাল থেকেই কর্ণাটক বিধানসভায় শুরু হতে চলেছে বাজেট অধিবেশন। এমতাবস্থা কর্ণাটকের ‘প্রভাবশালী’ মন্ত্রীর এই কাণ্ডের জেরে অধিবেশন ‘ভন্ডুলের’ আশঙ্কা করছে রাজনৈতিক মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here