kolkata bengali news

ডেস্ক: বৈশাখী ঝড়ে টালমাটাল শোভনের জীবনে বৈশাখী ছাড়া পাশে আর কেউ নেই। না আছে রাজনীতি, না মন্ত্রিত্ব, না মমতা। শেষ মেয়র পদটারও এখন দখল নিয়েছে সহকর্মী ফিরহাদ হাকিম। ওদিকে যা নিয়ে এত সমস্যার সূত্রপাত সেই রত্না চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিচ্ছেদ মামলা চলছে আদালতে। তারই শুনানিতে মঙ্গলবার বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে সঙ্গে নিয়ে হাজিরা দিলেন শোভন। উপস্থিত ছিলেন রত্না চট্টোপাধ্যায় ও শোভন-রত্নার কন্যাও। সেখানে হঠাৎই আবেগ প্রবণ হয়ে উঠলেন শোভন।

এদিন আদালতে সওয়াল জবাব পর্ব চলাকালীন হঠাৎই বিচারকের কাছে বাবার সঙ্গে কথা বলার আর্জি জানান শোভন কন্যা। সেই আর্জিতে সায় দেন বিচারকও। এরপর দীর্ঘক্ষণ কথা হয় বাবা মেয়ের মধ্যে। তারপর এজলাসে দাঁড়িয়ে শোভন চট্টোপাধ্যায় জানান, ‘আমি স্ত্রীর সঙ্গে আইনি বিচ্ছেদ চাই।’ পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, ‘আমার সন্তানদের পুরোদমে বিভ্রান্ত করা হয়েছে। তবে আমি চাই, ওরা মানুষের মতো মানুষ হোক।’ পাশাপাশি আদালত থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের সামনে রত্না চট্টোপাধ্যায় জানান, ‘আমার সঙ্গে সম্পর্ক না রাখলে না রাখুক শোভন। কিন্তু বাবা হিসাবে ছেলে মেয়ের সঙ্গে সম্পর্কটা রাখুক। ছেলে মেয়েরাও যাক বাবার কাছে।’

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে সম্পর্কের টানাপোড়েনের জেরে টালমাটাল পরিস্থিতি চলছিল তাঁর রাজনৈতিক জীবনে। কিন্তু সে সমস্যার সমাধান না হওয়া এবং কাজে গাফিলতির জেরে একাধিকবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে বকা খান তিনি। শেষে পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছয় যে একে একে পদ খোয়াতে হয় শোভনকে। বৈশাখী সম্পর্কের জেরে শেষ পর্যন্ত মন্ত্রীত্ব ও মেয়র পদ খোয়াতে হয় শোভনকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here