‘কাশ্মীরের বাস্তব ছবিই তুলে ধরেছি’, দাবি ‘দেশদ্রোহী’ শেলার

0
229
kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: বেশ করেছি, যা লিখেছি৷ সোজা কথা ‘টুকরা গ্যাঙ’ -এর অন্যতম নেত্রী শেলা রশিদের৷ কাশ্মীরের ভূমিকন্যা তিনি৷ নিজের চোখে সেনাদের সাধারণ মানুষের ওপর অত্যাচার করতে দেখেছেন৷ বহু সাক্ষাৎকারে তিনি একথা অকপটে জানিয়েছেন৷ তাঁর কথায়, ‘আমার অভিযোগের স্বপক্ষে যথেষ্ট তথ্য প্রমাণ আছে৷ প্রয়োজনে আমি তা সাবইকে দেখাতে পারি৷ তাই আমার কাশ্মীর নিয়ে বক্তব্যর জন্য বিন্দুমাত্র অনুতপ্ত নই৷ চাই বিশ্ব কাশ্মীরের আসল অবস্থা জানুক’৷ উল্লেখ্য জম্মু-কাশ্মীরে সাধারণ মানুষের ওপর সেনারা অত্যাচার করছে৷ এমন ফেসবুকে পোস্ট করে দেশদ্রোহের মামলায় অভিযুক্ত শেলা রশিদ৷ তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি দিল্লিতে বসে ফেসবুকে কাশ্মীর সম্পর্কে ভুয়ো খবর প্রকাশ করে গুজব ছড়াচ্ছেন৷

কানহাইয়া কুমার, শেলা রশিদদে ‘টুকরা গ্যাঙ’ বলে বার বার তীব্র কটাক্ষ করেছে গেরুয়া শিবির৷ তাঁরা জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র নেতা-নেত্রী৷ ‘ভারত তেরে টুকরা করেঙ্গে’- একসময় প্রকাশ্যে এই স্লোগান দেওয়ায় দেশদ্রোহের মামলায় জেলে গিয়েছিলেন কানহাইয়া কুমার৷ তাঁর ঘনীষ্ট সহযোগীদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন শেলা রশিদ৷ কানহাইয়া কুমার, শেলা রশিদের নামে দেশদ্রোহের মামলা রয়েছে৷ যদিও এখনও পর্যন্ত তাঁদের কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি৷ সেই প্রসঙ্গে শেলার সাফ কথা, ‘আমি অন্যায় কিছু করিনি৷ ৩৭০ ধারা লোপের পরে কাশ্মীরে যা অবস্থা তাই তুলে ধরেছি৷ এটা যদি অপরাধ হয়, তবে আমি যে কোনও শাস্তির জন্য প্রস্তুত৷ তবে বিশ্বাস করি আমি কোনও অন্যায় করিনি৷ স্বাধীন মতপ্রকাশ কখনওই দেশদ্রোহিতা হতে পারে না বলে বিশ্বাস করি’৷

শেলা কাশ্মীরি নেত্রী ৷ কানহাইয়া কুমারের সঙ্গে তিনিও বার বার মোদী সরকারের তীব্র বিরোধিতা করেছেন৷ তবে কেন্দ্রীয় সরকার সহ গেরুয়া শিবির তাঁদের বার বার দেশদ্রোহী পাকিস্তানপন্থী বলে অভিযোগ তুলেছেন৷ তাঁদের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় সরাকেরর স্পষ্ট অভিযোগ তাঁরা দেশকে টুকরো করেত চান৷ যদিও এই বিষয়ে তাঁদের বক্তব্য দেশ নয়, তাঁরা শাসন পদ্ধতির পরিবর্তন চান৷ তাঁরা৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here