kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, বহরমপুর: লোকসভা নির্বাচনের দিন যতই এগোচ্ছে, চৈত্রের দহনে প্রার্থীদের ভোট প্রচারের পারদও তত বাড়ছে। এরই মাঝে তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা করতে মুর্শিদাবাদ লোকসভা কেন্দ্রের দলীয় প্রার্থী আবু তাহের খানের সমর্থনে শুক্রবার করিমপুর, ডোমকল ও ইসলামপুরে আয়োজিত কর্মীসভায় যোগ দেন দলের জেলা পর্যবেক্ষক তথা রাজ্যের পরিবহন ও পরিবেশমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। শুক্রবার হেলিকপ্টারে করে প্রথমে করিমপুরের কর্মীসভায় যোগ দেন তিনি। কর্মী সভায় শুভেন্দু ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন করিমপুরের বিধায়ক তথা কৃষ্ণনগর লোকসভার প্রার্থী মহুয়া মৈত্র, মুর্শিদাবাদের লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী আবু তাহের খান সহ জেলা শীর্ষ নেতৃত্ব। এরপর শুভেন্দুবাবু যোগ দেন ডোমকল জনকল্যাণ সমিতির মাঠে আয়োজিত কর্মীসভায়। উপস্থিত ছিলেন প্রার্থী আবু তাহের খান, মইনুল হাসান, মহম্মদ আলি, সৌমিক হোসেন সহ অন্যান্য নেতৃত্ব। ডোমকলের সভা শেষে শুভেন্দু অধিকারী যোগ দেন ইসলামপুরের কর্মীসভায়।

প্রতিটি সভা থেকেই মুর্শিদাবাদ লোকসভা কেন্দ্রের তৃনমুল কংগ্রেস প্রার্থী আবু তাহের খান সহ তিনটি আসনেই তৃনমুল প্রার্থীদের জেতানোর জন্য আহবান জানান তিনি। ডোমকলের সভা শেষে শুভেন্দুবাবু বলেন, ‘রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের উন্নয়নের কথা বাড়ি বাড়ি গিয়ে সাধারণ মানুষকে বলতে হবে। এভাবেই মুর্শিদাবাদের তিনটি আসনে দলের প্রার্থীদের জেতাতে হবে। তবেই রাজ্যে বিয়াল্লিশে বিয়াল্লিশ আসনেই দলের প্রার্থীরা জিতবে। সাম্প্রদায়িক বিজেপি একটি জুমলা (মিথ্যাবাদী) দল। এবারের ভোট মানে সাম্প্রদায়িক বিজেপিকে রোখার ভোট। কেন্দ্র থেকে সাম্প্রদায়িক বিজেপি সরকারকে উৎখাত করে কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পেতে সব আসনে তৃণমূল প্রার্থীদের জেতানোর জন্য আহবান জানান তিনি। কংগ্রেস দলটা এখন গরুর গাড়ির হেডলাইট আর তার দোসর সিপিআইএম ও বিজেপি। আবু তাহের খান দু’বারে পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি, চার বারের বিধায়ক। তিনি মানুষের কাজ করেন। জেলার সার্বিক উন্নয়ন করতে হলে তাকে জেতাতে হবে, দিদির হাত শক্ত করতে হবে। তার অন্যতম দুই প্রতিদ্বন্দ্বী আবু হেনা ও বদরুদ্দোজা খান পরিযায়ী পাখি ভিন্ন আর কিছুই নয়। তাদের শুধু ভোটের সময় দেখা যায়।’

 

পাশাপাশি এদিন শুভেন্দুবাবু সাধারন মানুষকে ইভিএম মেশিন নিয়েও সতর্ক করেন। তিনি বলেন, ‘লোকসভা নির্বাচনের দিন ইভিএম মেশিনে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থীদের ভোট দিয়ে ভিভিপ্যাটে অবশ্যই দেখে নেবেন আপনার মূল্যবাণ ভোট তৃণমূলের প্রতীকেই পড়েছে কিনা। কারও কথায় বা হুমকি ধমকিতে ভয় পাবেন না। অধীরকে কি ভাবে হারাতে হয় তার পদ্ধতি আমার জানা আছে। আমি কথা দিয়েও যাচ্ছি জেলার তিনটি আসনেই তৃণমূলের প্রার্থীরাই জয়ী হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here