kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: ভোটের দামামা বাজতেই কয়েকদিন আগে নন্দীগ্রামের তেখালির জনসভায় দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণা করেছিলেন তিনি নন্দীগ্রামের প্রার্থী হবেন। মমতা ব্যানার্জির এই ঘোষণার পর হুঙ্কার ছুড়েছিলেন প্রাক্তন তৃণমূল নেতা তথা অধুনা বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলেছিলেন, মুখ্যমন্ত্রী এখানে দাঁড়ালে তাঁকে ৫০ হাজার ভোটের ব্যবধানে হারাবেন। কয়েক দিন পর অন্য একটি জনসভায় শুভেন্দু অধিকারী সেই ব্যবধান বাড়িয়ে দাবি করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রীকে এক লক্ষ ভোটের ব্যবধানে হারাবেন বলে।

​আজ তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। কালীঘাটের নিজের বাড়িতে দলের এই প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রার্থী তালিকা প্রকাশের পর দেখা গিয়েছে বেশ কিছু চমক। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুধুমাত্র নন্দীগ্রাম আসন  থেকেই প্রার্থী হচ্ছেন। টালিগঞ্জের একাধিক তারকা জায়গা পেয়েছেন প্রার্থী তালিকায়। প্রার্থী তালিকা সামনে আসার পর আবার হুঙ্কার হুংকার দিলেন শুভেন্দু অধিকারী।

​আজ পূর্ব মেদিনীপুরের পাঁশকুড়ায় বিজেপির একটি জনসভায় শুভেন্দু অধিকারী দাবি করেছেন, এই জেলায় তৃণমূলের ফল ১৬-০ হবে। শুধু তাই নয় মুখ্যমন্ত্রীকে তিনি তিনগুণ ভোটের ব্যবধানে হারাবেন বলে জোর গলায় দাবি করেছেন। শুভেন্দু বলেছেন, তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা দেখে বুঝে গিয়েছি, জেলায় ১৬-০ হবে। নন্দীগ্রামের মানুষ বলেছেন, এখানে বহিরাগত নয় ভূমিপুত্র চাই। নিজের কেন্দ্র ছেড়ে পালিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামের এসেছেন। কারণ, তিনি বুঝতে পেরেছিলেন ভবানীপুরে হারবেন। এরপর শুভেন্দু বলেন, লড়াইয়ের ময়দানে দেখা হবে। আগামী ২ মে-র পর সবুজ আবির সরিয়ে আমরা গেরুয়া আবির ওড়াব।

​উল্লেখ্য, তৃণমূল ছাড়াও বাম-কংগ্রেস ও আইএসএফ জোট প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে। এখনও নিজেদের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেনি বিজেপি। গতকাল দিল্লিতে দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার বাড়িতে রাজ্য নেতাদের নিয়ে বৈঠক হয়। সেই বৈঠকে প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হয় বলে জানা গিয়েছে। তবে এখনও সেই তালিকা প্রকাশ হয়নি। গতকাল জানা গিয়েছিল, নন্দীগ্রামে লড়ার জন্য ইচ্ছাপ্রকাশ করেছেন শুভেন্দু অধিকারী।

শুভেন্দুর ইচ্ছায় দল চূড়ান্ত সিলমোহর দিতে পারে। কারণ, নন্দীগ্রামে মুখ্যমন্ত্রী তৃণমূল প্রার্থী হয়েছেন। তাঁর বিরুদ্ধে লড়ার মতো হেভিওয়েট প্রার্থী সেখানে এই মুহূর্তে নেই বিজেপির হাতে। ফলে শুভেন্দু যদি নন্দীগ্রামে মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে লড়াই করেন, তা হলে তাঁকে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখে ফেলা যাবে বলে মনে করছে বিজেপি। এই হাইভোল্টেজ ভোটে নন্দীগ্রাম আসনটি যে নজর কাড়বে তা বলাই যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here