kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: ক্ষমতায় এলে কাউকে ছাড়া হবে না। যারা দোষী তাদের বিরুদ্ধেও তদন্ত হবে। উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হবে। শীতলকুচিতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে চার যুবকের মৃত্যুর পর এই কথা বলেছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকাল তিনি মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তৃতীয় বারের জন্য শপথ নিয়েছেন। এরপর সেই ঘটনার তদন্তে স্পেশ্যাল ইনভেস্টিগেশন টিম বা সিট গঠন করল রাজ্য সরকার। কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে সিআইডি’র একটি টিম গঠন করেছে রাজ্য সরকার। ওই তদন্তকারী দল ঘটনার তদন্ত করে রিপোর্ট জমা দেবে। তারপর পরবর্তী পদক্ষেপ করবে রাজ্য সরকার।

​ঘটনার পর তৎকালীন জেলা পুলিশ সুপার দেবাশিস ধর বলেছিলেন, বাহিনীর কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছিল দুষ্কৃতীরা। তখন গুলি চালাতে বাধ্য হয় কেন্দ্রীয় বাহিনী। তাঁর কথায়, সেদিন গুলি চালানোর মতো পরিস্থিতি হয়েছিল বলেই কেন্দ্রীয় বাহিনী ওখানে গুলি চালিয়েছিল। গতকাল কোচবিহারের সেই পুলিশ সুপারকে সরিয়ে দিয়েছে প্রশাসন।  ওই ঘটনায় আইও-কে আজ তলব করা হয়েছে ভবানীভবনে। মাথাভাঙার আইসি-কেও তলব করা হবে আগামী সপ্তাহে।

​উল্লেখ্য, চতুর্থ দফার ভোটে কোচবিহারের শীতলকুচির ১২৬ নম্বর বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে মৃত্যু হয়েছিল চার গ্রামবাসীর। এই ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় সেখানে। স্থগিত হয়ে যায় ভোট। ঘটনার পর সেখানে ছুটে যেতে চেয়েছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু, কমিশন পরবর্তী ৭২ ঘণ্টা সেখানে কোনও রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীর প্রবেশ নিষিদ্ধ বলে জানায়। তারপর নিষেধাজ্ঞা উঠে যেতেই হাসপাতালে গিয়ে নিহতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে তিনি বলেছিলেন, ক্ষমতায় এলে এই ঘটনার উপযুক্ত তদন্ত হবে। দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তারপর ঘটনা তদন্তে এবার গঠিত হল স্পেশ্যাল ইনভেস্টিগেশন টিম বা সিট।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here