নিজস্ব প্রতিবেদক, সিউড়ি: বীরভূমের পাড়ুই থানায় মধ্যযুগীয় বর্বরতায় বাবার হাতের আঙুল কেটে নেওয়ার ঘটনায় ছেলে সহ ৬ জনকে গ্রেফতার করল পুলিশ। ধৃত মূল অভিযুক্ত ছেলে হরিশচন্দ্র সর্দার সহ ৬ জনকে বৃহস্পতিবার সিউড়ি আদালতে তোলা হয়। চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট প্রকাশ চন্দ্র বর্মন ছেলে সহ চারজনকে সাত দিনের পুলিশ হেফাজত ও বাকি দুজনের ১৪ দিনের জেল হেফাজত মঞ্জুর করেন। আগামী ১৮ই অক্টোবর পুনরায় এই মামলার শুনানি হবে।

আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার বীরভূমের পাড়ুই থানার রাধাকৃষ্ণপুর গ্রামের​ বাসিন্দা ফন্দি সর্দারকে ডাইনি সন্দেহে তার হাতের দশটি আঙুল কেটে নেয় তার ছেলে হরিশচন্দ্র সর্দার। অভিযোগ, হরিশচন্দ্র গ্রামের মোড়ল অনিল সর্দার ও ওঝা উত্তম বীরবংশীর নির্দেশেই এমনটা করেছে সে। ঘটনা জানাজানি হতেই নড়েচড়ে বসে পুলিশ প্রশাসন। বুধবার রাতের মধ্যেই ৬ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃতরা হল, হরিশচন্দ্র সর্দার, ছবিলাল সর্দার, বলরাম সর্দার, রবি সর্দার, যতন সর্দার ও হিমন্ত সর্দার।

পুলিশ ধৃতদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৪৮,৩২৬,৩০৭,৫০৬,১২০ ধারায় মামলা রুজু করে। ধৃতদের বৃহস্পতিবার সিউড়ি আদালতে তোলা হয়। বিচারক অভিযুক্ত ছেলে হরিশচন্দ্র সর্দারসহ, ছবিলাল সর্দার, বলরাম সর্দার ও রবি সর্দারকে পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন। ঘটনার পর থেকে মোড়ল ও ওঝা পলাতক ছিল । অভিযুক্তপক্ষের আইনজীবী সুব্রত দে বলেন, আমার মক্কেলদের জামিনের আবেদন করা হয়েছিল। বিচারক তা খারিজ করে ৪ জনকে পুলিশি হেফাজত এবং দুজনকে জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here