ডেস্ক: বিষধর সাপ নিয়ে কেরামতি দেখিয়ে কয়েকদিন আগেই মৃত্যু হয়েছিল হলদিবাড়ির যুবকের। এবারে সেই তালিকায় নাম জুড়ল এক অভিনেত্রীর। মূলত বিষধর সাপ ধরে খেলা দেখানো বা সাপ নিয়ে কেরামতি দেখানো বন্য আইনের আওতায় পরে। কিন্তু সেই নিয়ম আছে নিজের জায়গায়। বাস্তবে চিত্রটা ঠিক উল্টো। এমনি এক মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার হাসনাবাদের বরুণহাট গ্রামে। গতকাল রাতে ওই গ্রামের এক ব্যবসায়ীর বাড়িতে প্রতি বছরের মত মনসামঙ্গল যাত্রাপালা বসে।

সেই যাত্রাপালাতে মনসামঙ্গল কাব্যে মঞ্চস্থ করার সময় জ্যান্ত বিষধর সাপ নিয়ে ওঠেন কালীদাসি মন্ডল নামের ওই অভিনেত্রী। সেখানেই ঘটে বিপত্তি। নাটক মঞ্চস্থ করার সময় হঠাৎ-ই সেই সাপ ওই অভিনেত্রীর হাতে কামড়ে নেয়। এরপর চিকিৎসকদের কাছে তাঁকে না নিয়ে গিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত ওঝা টানা চারঘন্টা ঝাড়ফুঁক করে। অবশেষে অভিনেত্রীটিকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গিলে চিকিৎসকেরা মৃত বলে ঘোষনা করে। চিকিৎসকদের দাবি কিছুক্ষন আগে ওই অভিনেত্রীটিকে হাসপাতালে আনলে হয়ত সুচিকিৎসার মাধ্যমে বাঁচানো যেত। কিন্তু এইখানেই প্রশ্ন উঠেছে। কীভাবে অভিনেত্রীটি বিষধর সাপ পেল?

সূত্রের খবর, অনুষ্ঠানে উপস্থিত এক ওঝা সবাইকে চমক দেবে বলে ওই বিষধর সাপ অভিনেত্রীর হাতে তুলে দেন। প্লাস্টিকের সাপ হাতে নিয়ে খেলা দেখানো অভ্যাস ছিল অভিনেত্রীর। কিন্তু জ্যান্ত সাপ হাতে নিতে প্রথমে ইতস্তত বোধ করে সে। অবশেষে ওঝার আদেশে সাপটি হাতে তুলে নেয় সে। তারপরই ঘটে এই পরিণতি। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে মাত্র ৪০০০ টাকায় ওই বিষধর সাপটি কিনে আনেন ওঝাটি খেলা দেখাবে বলে। কিন্তু এর পরিণতি হয় ভয়ঙ্কর। মুখ্য বন্যপাল আধিকারিক রবিকান্ত সিনহা জানিয়েছেন ‘এই কাজটি সম্পূর্ন রূপে বেআইনি। এইভাবে বন্যপ্রাণকে নিয়ে খেলা দেখানো যায়না।’ এখনও পর্যন্ত পুলিশ এই ঘটনার তদন্তে নামতে পাড়েনি। কারণ অভিনেত্রীটির পরিবারির পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ থানায় জমা দেওয়া হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here