ডেস্ক: মোদীর হয়ে প্রচার করে বিতর্কে রাজস্থানের রাজ্যপাল কল্যাণ সিং। শনিবার নরেন্দ্র মোদীকে ক্ষমতায় ফেরানোর পক্ষে সওয়াল করলেন তিনি। মোদীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে তিনি বলেন, দেশ এবং সমাজের ভালোর জন্য নরেন্দ্র মোদীর ফের নির্বাচিত হওয়া অত্যন্ত জরুরি। নিজেকে বিজেপির কর্মকর্তা বলে দাবিও করলেন তিনি। তাঁর এদিনের মন্তব্যের পরেই বিভিন্ন মহলে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। সাংবিধানিক পদে থেকে কল্যাণ সিং কীভাবে মন্তব্য করেন এই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।

কল্যাণ সিং-এর নিজের শহর আলীগড় লোকসভা আসনে বিজেপি প্রার্থী কে হবে সে নিয়ে নিজেদের মধ্যে ঝামেলায় লিপ্ত হয়েছে দলীয় কর্মীরা। এসবের মাঝেই শনিবার ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে মোদীর প্রশংসা করেন রাজ্যপাল। তিনি বলেন, আমরা সকলে ভারতীয় জনতা পার্টির কর্মকর্তা এবং আমাদের উদ্দেশ্য হল যে, নরেন্দ্র মোদীকে পুনরায় প্রধানমন্ত্রী বানানো। আমরা নিশ্চয়ই চাই যে বিজেপি আবার ক্ষমতায় ফিরে আসুক। দেশ এবং জাতির স্বার্থে তাঁর আবারও একবার প্রধানমন্ত্রী হওয়া দরকার।

 

জানা গিয়েছে, আলিগড়ে বিজেপির প্রার্থী হয়েছেন সতীশ গৌতম। আর এটা নিয়েই যত ঝামেলার সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় বিজেপি কর্মীদের বক্তব্য, তিনি একবারও নির্বাচন ক্ষেত্র পরিদর্শন করতে আসেননি। শনিবার কল্যাণ সিং-এর বাড়ির সামনে কয়েকজন নেতা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। এরপর রাজ্যপাল সকলের উদ্দেশ্যে বলেন যে, দলের সিদ্ধান্ত সকলের মেনে নেওয়া উচিৎ। উল্লেখ্য, ৮৭ বছর বয়সী কল্যাণ সিং দু’বার উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হন। ১৯৯২ সালে যখন বাবরি মসজিদ ভেঙে ফেলা হয় তখন তিনি উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর পদে ছিলেন। পরে মসজিদ ভেঙে দেওয়ার পর রাজ্যে তাঁর সরকার পড়ে যায়। ১৯৯৯ সালে তিনি গেরুয়া শিবির ত্যাগ করেন। এরপর ২০০৪ সালে পুনরায় তিনি দলে ফিরে আসেন। এরপর আবার তিনি ২০০৯ সালে দল ছেড়ে দেন। ২০১৪ সালে বিজেপি ক্ষমতায় এলে তাঁকে রাজস্থানের রাজ্যপাল নিয়োগ করে কেন্দ্রীয় সরকার। সাংবিধানিক পদে থেকে শাসকদলের পক্ষে সওয়াল করে বিতর্কে জড়ালেন তিনি। তবে তিনিই প্রথম নন, বিজেপির পশ্চিমবঙ্গের নেতা তথাগত রায় ত্রিপুরার রাজ্যপাল পদে থেকে দলের সপক্ষে বিভিন্ন সময়ে নানান কথা বলে বিতর্কে জড়িয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here