kolkata news
Highlights

  • করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কের ঠেলায় এমনিতেই লাটে উঠতে বসেছে রাজ্যের পোলট্রি ব্যবসা
  • মুরগির মাংস অধিকাংশ মানুষ এড়িয়ে চলছেন
  • এই আতঙ্কের মধ্যেই হাওড়ার আন্দুলের বকুলতলায় একটি ভ্যাটে বৃহস্পতিবার সকালে প্রচুর মরা মুরগি পড়ে থাকতে দেখা যায়


নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া:
করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কের ঠেলায় এমনিতেই লাটে উঠতে বসেছে রাজ্যের পোলট্রি ব্যবসা। মুরগির মাংসের দাম তলানিতে এসে ঠেকেছে। মুরগির মাংস অধিকাংশ মানুষ এড়িয়ে চলছেন। এই আতঙ্কের মধ্যেই হাওড়ার আন্দুলের বকুলতলায় একটি ভ্যাটে বৃহস্পতিবার সকালে প্রচুর মরা মুরগি পড়ে থাকতে দেখা যায়। যা দেখে আরও আতঙ্ক ছড়িয়েছে ওই এলাকায়। এদিন সকালে এলাকার লোকজন দেখতে পান, বকুলতলার ওই ভ্যাটে পড়ে আছে প্রচুর মরা মুরগি। এই মরা মুরগিগুলি কে বা কারা রাতের অন্ধকারে এই ভ্যাটে ফেলে গেল, তা এখনও জানা যায়নি।

এই মুরগিগুলির মৃত্যু কোনও রোগের কারণে হয়েছে কিনা, তাও স্পষ্ট নয়। ঘটনায় এলাকায় আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। এদিন সকালে স্থানীয় বাসিন্দারা আন্দুল রোডের ওপর বকুলতলা ভ্যাটের মধ্যে প্রচুর মরা মুরগি পড়ে থাকতে দেখেন। খবর দেওয়া হলে আসে পুলিশ। পুলিশ বিষয়টি খোঁজখবর করে দেখছে। এমনিতেই প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসকে কেন্দ্র করে নানাবিধ খবর ছড়াচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা দেখে সাধারণ মানুষ আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। এই আতঙ্কের মধ্যেই হাওড়ার আন্দুল বকুলতলায় ওই ভ্যাট থেকে প্রচুর মরা মুরগি পাওয়া যাওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে ওই এলাকায়।

বিক্রি তলানিতে নেমে যাওয়ায় প্রবল ক্ষতির মুখে পড়ে পোলট্রি মালিকরা খাবার জোগান দিতে না পারায় জ্যান্ত মুরগি পুঁতে দিয়েছিলেন। প্রায় ১০ হাজার মুরগিকে জ্যান্ত কবর দেন পোলট্রি মালিকরা। ঘটনাটি ঘটে কর্ণাটকের বেলাগাভি ও কোলার জেলায়। পোলট্রি ফার্মের মালিক নাজির মকন্দর জানান, করোনা নিয়ে আতঙ্কের ফলে এতই ক্ষতির মুখ দেখছেন তিনি। ফার্মের বাকি মুরগিগুলির খাবার কেনার সামর্থ তাঁর আর নেই। তাই সব মুরগি জ্যান্ত কবর দিয়েছেন তিনি। আন্দুলের এই ঘটনার সঙ্গে কর্ণাটকের বেলাগাভি ও কোলার জেলার ঘটনার মিল খুঁজছেন এলাকার লোকজন। মনে করা হচ্ছে, খাবার জোগান না দিতে পারায় মুরগিগুলি মারা যায়। আর সেই মুরগিগুলি এখানে ফেলে যায় কেউ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here