বড়জোড়ার বাগুলি কয়লা খনির দফতরে সাংসদ সৌমিত্র খাঁর নেতৃত্বে বিক্ষোভ

0
55
kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঁকুড়া: কয়লা খনি থেকে কয়লা উত্তোলনের জন্য একদিকে যেমম জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছিল তেমনি কয়লা উত্তোলনের জন্য মাটির নীচে বিস্ফোরণের জেরে বেশ কিছু বাড়িতে ফাটলও দেখা দেয়। কিন্তু জমিহারারা যেমন ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসন পাননি তেমনি কয়লা খনির দরুন ক্ষতিগ্রস্তরাও কোন ক্ষতিপূরণ পাননি। আবার খনি থেকে উত্তোলিত কয়লা পরিবহণের ক্ষেত্রেও স্থানীয় যুবকরা কোন সুযোগ পাননি। এসব নিয়েই ক্ষোভ দানা বাঁধছিল বাঁকুড়া জেলার বড়জোড়া ব্লকের বাগুলি কয়লাখনিকে ঘিরে। এবার সেই ক্ষোভকেই আঁকড়ে ধরে রাজনৈতিক ভাবে মাঠে নেমে পড়ল গেরুয়া শিবির। শুক্রবার বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁর নেতৃত্বে বাগুলি কয়লাখনির দফতরে বিক্ষোভ দেখাল বিজেপি। সেই সঙ্গে দাবি করা হল বাগুলি কয়লাখনির জেরে ক্ষতিগ্রস্থ ও জমিহারাদের ক্ষতিপূরন এবং পুনর্বাসন দিতে হবে। পাশাপাশি কয়লা পরিবহনের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দিতে হবে স্থানীয়দের।

জানা গিয়েছে, বাঁকুড়ার বড়জোড়ার কাছে বাগুলি কয়লাখনি থেকে কয়লা উত্তোলনে একসময় যুক্ত ছিল ডিভিসি এমটা নামের একটি সংস্থা। বছর চারেক আগে কয়লা ব্লক বণ্টন দুর্নীতি সামনে আসার পর ওই সংস্থার কয়লা উত্তোলনের বরাত বাতিল হয়ে যায়। নতুন করে বরাত পায় মন্টোকার্লো নামের একটি সংস্থা। বেশ কিছুদিন হল ওই সংস্থা কয়লাখনি থেকে কয়লা উত্তোলনের কাজ শুরু করেছে। কিন্তু স্থানীয়দের অভিযোগ কয়লাখনির জমিদাতারা এখনও সঠিক ক্ষতিপূরন পায়নি। পাশাপাশি প্রতিদিন কয়লাখনির ভেতরে বিস্ফোরণে নতুন করে ক্ষতি হচ্ছে আশাপাশের গ্রামের বাড়িগুলির। বহু বাড়িতে বড় বড় ফাটল দেখা দিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ স্থানীয় বাসিন্দাদের পুনর্বাসন দেওয়ার ব্যাপারে কোনও রকম ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি কয়লাখনির বরাত পাওয়া ওই সংস্থা। এর পাশাপাশি বিজেপির বিক্ষোভকারীদের দাবি কয়লাখনি থেকে কয়লা পরিবহনের ক্ষেত্রে স্থানীয় পরিবহন ব্যবসায়ীদের অগ্রাধিকার দেওয়ার কথা থাকলেও কোন এক অজ্ঞাত কারনে তৃণমূল ঘনিষ্ঠ একটি বহিরাগত সংস্থাকে দিয়ে কয়লা পরিবহন করানো হচ্ছে। এরফলে এলাকার মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ হাতছাড়া হচ্ছে। এই বিষয়গুলি নিয়ে দাবি জানাতে গেলেই স্থানীয়দের মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ বিজেপির।

এদিন এই সব বিষয় নিয়েই ওই বেসরকারি সংস্থার দফতর ঘেরাও করে বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁর নেতৃত্বে বিক্ষোভ দেখায় বিজেপি। বিক্ষোভে স্থানীয় বিজেপি কর্মী সমর্থকদের পাশাপাশি জমিহারা ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলিও সামিল হয়। পরে ওই বেসরকারি সংস্থা সমস্যা সমাধানে আলোচনার আশ্বাস দিলে বিক্ষোভ উঠে যায়। তবে সৌমিত্র খাঁ এদিন জানিয়ে দিয়েছেন, অবিলম্বে সমস্যাগুলির সমাধানের ব্যাপারে কয়লা উত্তোলনকারী সংস্থা উদ্যোগী না হলে ভবিষ্যতে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। পাশাপাশি স্থানীয়দের মিথ্যা মামলায় জড়ানো যেমন বন্ধ করতে হবে তেমনি তৃণমূল ঘনিষ্ঠ সংস্থাকে একচেটিয়া ভাবে কয়লা পরিবহণ বন্ধ করতে হবে। কয়লা পরিবহণের ক্ষেত্রে স্থানীয় বেকার যুবাদের অগ্রাধিকার দিতে হবে। যদিও এদিন বিজেপির তোলা যাবতীয় অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। তাদের দাবি দেশজুড়ে যেমন বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্রে কর্মী ছাঁটাই করা হচ্ছে তেমনি বিজেপি এখানেও সমস্যা পাকাতে চাইছে। যদিও এদিন বিজেপির বিক্ষোভের পরে যাবতীয় সমস্যা নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের আশ্বাস দিয়েছে কয়লাখনি কর্তৃপক্ষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here