bengali news sourav ganguly

মহানগর ওয়েবডেস্ক: সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে বিসিআই প্রেসিডেন্ট করার আগে কম নাটক হয়নি। প্রথমে অন্যান্য নাম উঠে এসেছিল। কিন্তু সৌরভের নাম ঘোষণা হওয়ার আগে বোর্ড প্রধানের চেয়ারে বসার ক্ষেত্রে আরেকটা নাম অনেকটা এগিয়ে যায়। তা হল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের ছেলে জয় শাহ। যদিও শেষ পর্যন্ত বোর্ড সচিবের পদই দেওয়া হয়েছে তাঁকে। কিন্তু ক্রিকেটীয় কোনও অভিজ্ঞতা ছাড়াই কীভাবে কেউ এহেন পদ পেতে পারেন, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। এই বিষয়ে সৌরভকে প্রশ্ন করা হলে তিনিও নিজের প্রতিক্রিয়া স্পষ্ট করে দেন।

সৌরভের মতে, ক্ষমতাশালী ব্যক্তিরা চাইলে ক্রীড়াজগতের প্রশাসনিক পদে কাজ করতেই পারেন। এতে তো ক্ষতির কিছু নেই। এমনটাই জানান সৌরভ। কলকাতার একটি পাঁচতারা হোটেলে বেসরকারি এক অনুষ্ঠানে এই বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়েছিল বেহালার রাজপুত্রকে। তখনই কোনও রাখঢাক না রেখে সৌরভ জানান, কাজের জায়গায় জয় শাহের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক খুবই ভাল। বিসিআইতে পরোক্ষে ‘স্বজনপোষণ’-এর কথা স্বীকার করে নিলেও এতে ভুল কিছু দেখছেন না তিনি। দাদার স্পষ্ট কথা, ‘আমাদের এবার পদবীর ঊর্ধ্বে উঠতে হবে। জয় শাহ যদি অমিত শাহের ছেলে হয় তো কী হয়েছে? ও নির্বাচনে জিতেছে। বিগত ৬-৭ বছর ধরে ও গুজরাট ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে যুক্ত। পদবী ছেড়ে স্বাধীনভাবে ওকে বিচার করা হোক।’

শুধু জয় শাহ নয়, যে কোনও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ছেলে-মেয়েকে কেন তাদের পদবী দিয়ে বিচার করা হবে? প্রশ্ন তুলেছেন সৌরভ। তাঁর মতে, যে যতই প্রখ্যাত বা বিখ্যাত ব্যক্তির সন্তান হোক, তাঁকে তাঁর কাজ দিয়েই যেন বিচার করা হয় পদবী দিয়ে নয়। উদাহরণস্বরূপ শচীন পুত্র অর্জুন টেন্ডুলকরের কথা উল্লেখ করেন তিনি।

সৌরভকে বলতে শোনা যায়, ‘ভারতে আমাদের একটা চিন্তাধারা প্রচলিত আছে, যদি আপনি কোনও খুব প্রভাবশালী ব্যক্তির ছেলে বা মেয়ে হন, তাহলে আপনি সেই পেশায় যুক্ত থাকতে পারবেন না। সেদিন শচীনও সবাইকে বলছিল, আমার ছেলেকে ক্রিকেটার হিসেবে দেখুন। শচীনের ছেলে হিসেবে নয়। ওর পদবী ভুলে ও ভাল না খারাপ সেটা দেখুন।’

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here