ডেস্ক: দক্ষিন-পূর্ব রেলের যাত্রীদের জন্য এবার আসতে চলেছে সুখবর। প্রতি বছর বর্ষাকালে জল জমে যায় টিকিয়াপাড়া কারশেড এলাকায়। তার জেরে লোকাল ট্রেন তো বটেই, দূরপাল্লার ট্রেনও হাওড়া স্টেশনে না ঢুকতে পারে না বার হতে পারে। কার্যত ওই সময় হাওড়া থেকে দক্ষিন-পূর্ব রেলের ট্রেন পরিষেবা কার্যত থমকে দাঁড়ায়। এই অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে এবার কোমর বেঁধে নামছে দক্ষিন-পূর্ব রেল কর্তৃপক্ষ।

জানা গিয়েছে টিকিয়াপাড়া কারশেডে জল জমা ঠেকাতে এবার হাওড়া পুরনিগমের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে নামতে চলেছে রেল। বর্ষার জমা জল যাতে দ্রুত নেমে যায় তার জন্য এবার টিকিয়াপাড়া কারশেড এলাকায় বসানো হচ্ছে বেশ কয়েকটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন পাম্প। বদল করা হচ্ছে সিগনালিং ব্যাবস্থাতেও। জমা জলের হাত থেকে রেহাই পেতে উঁচু করা হবে সিগনাল পোস্টগুলিও। সেই কারনেই রবিবার দিনভর চলল রেললাইন ও সিগনাল ব্যবস্থার বদলের কাজ।

তবে এত কিছু করেও সমস্যার হাত থেকে কতখানি মুক্তি পাওয়া যাবে তা নিয়ে ঘোর সন্দেহ থেকেই যাচ্ছে। কারণ, টিকিয়াপাড়ায় যেখানে দক্ষিন-পূর্ব রেলের কারশেডটি রয়েছে তার অবস্থান রান্না করার কড়াইয়ের মত। ফলে একটু বৃষ্টি হলেই চতুর্দিক থেকে জল এসে জমা হয় লাইনের উপর। তাছাড়া কারশেড থেকে দ্রুত জল বার হওয়ার জন্য বড় ভরসা ছিল লিলুয়া থানার সামনে থাকা সুবিশাল ঝিল। সেই ঝিল কার্যত মজে গিয়েছে পলি জমে জমে। সেই ঝিল বছরের এমনি সময়েই জল টানতে পারে না, বর্ষায় কারশেডের জমা জল কি টানবে! তাই পাম্প বসালেও, সিগ