ডেস্ক: বঙ্গীয় রাজনীতির রঙ্গমঞ্চে বিরোধীদের ব্যঙ্গত্মক হাসির অন্যতম খোরাক তৃণমূল নেতা শোভন চট্টোপাধ্যায়। সাম্প্রতিক সময়ে শোভনবাবু ও তাঁর বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে রসালো গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে রাজ্যে অলিতে গলিতে। যা নিশ্চিতভাবে তৃণমূলের জন্য সুখকর নয়। স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁর বিচ্ছেদ মামলা এবং বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠতা তৃণমূলের অন্দরমহলেও তুলেছে গুঞ্জন। দলের ভাবমূর্তী খারাপ হওয়ার ভয়ে সমস্যা মেটানোর নির্দেশ এসেছে উপর মহল থেকেও। অথচ সমস্যা মিটিয়ে ফের নতুন করে রত্না দেবীর সঙ্গে সংসার পাততে নারাজ ছিলেন শোভন। মামলা এখনও চলছে। আর সেই ভেঙে যাওয়া ঘর গোছাতে স্বামী-স্ত্রী (শোভন-রত্না)কে নতুন করে মধু চন্দ্রিমায় পাঠানোর জন্য নেওয়া হল উদ্যোগ।

শোভন অ-রাজি হলেও স্বামীর সঙ্গে আপোষ করতে রাজি হয়েছেন স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়। মঙ্গলবার শোভন ও রত্না চট্টোপাধ্যায়ের বিচ্ছেদ মামলার শুনানিতে রত্না চট্টোপাধ্যায়ের আইনজীবি জানান, আদালতের বাইরে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে আপোষ করতে রাজি আছেন রত্না দেবী। আর সেই কারণেই তাঁদের তাঁদের কাশ্মীর ঘুরতে পাঠানো হোক। এমনটাই জানিয়েছেন রত্না দেবীর আইনজীবী। আদালতে রত্নার আইনজীবীর দাবি, আদালতের খরচে তাঁদের দুইজনকে কাশ্মীর ঘুরতে পাঠানো হোক। আইনজীবীর যুক্তি, ওখানে গেলে তাঁরা তাঁদের পুরানো স্মৃতি ফিরে পাবেন। তাহলে হয়ত আগের দাম্পত্য জীবনে ফের ফিরতে পারবেন তাঁরা।

উল্লেখ্য, গত কয়েকদিন ধরে খবরের শিরোনামে শোভন চট্টোপাধ্যায়। তাঁর ব্যক্তিগত দাম্পত্য কলহ, বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা এবং সব মিলিয়ে একজন মেয়র হয়েও নিজের দায়িত্বে অবহেলারও অভিযোগ উঠেছে তাঁর বিরুদ্ধে। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছয় যে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তাঁকে ফোন করে সব সমস্যা মিটিয়ে নিয়ে কাজে মন দেওয়ার নির্দেশ দেয়। এর মাঝেই সাংবাদিকদের সামনে বৈশাখির সঙ্গে তাঁর বন্ধুত্বের কথা জানান শোভনবাবু। যা নিয়েও জল্পনা কম হয়নি। যার ফল স্বরুপ আরও বাড়ে শোভন এবং রত্না চট্টোপাধ্যায়ের দূরত্ব। শোভনবাবুর বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ দায়ের করেন রত্না দেবী। অবশ্য এদিন আদালতে শোভন চ্যাটার্জি পুলিশকে প্রভাবিত করছেন বলেও অভিযোগ করেছেন রত্নার আইনজীবী। এমনকী গোলপার্কের ফ্ল্যাটে থাকার তাঁর কোনও অধিকার নেই বলেও দাবি করেছেন রত্না। তবে এসমস্ত বিষয়ে এখনও কোনও কিছুই জানায়নি আদালত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here