ডেস্ক: পারিবারিক বিবাদের জেরে এই মুহূর্তে দলনেত্রীর চক্ষুশূল হয়েছেন কলকাতার মেয়র পার্থ চট্টোপাধ্যায়। ঘরোয়া বিবাদ জনসমক্ষে চলে আসায় ভাবমূর্তি কালিমালিপ্ত হয়েছে অনেকটাই। তাঁর প্রভাব পড়েছে দলেও। ফলস্বরুপ, মেয়র পদ থাকলেও দলের মধ্যে কাটছাট হয়েছে তাঁর পদগুলি। দলের শীর্ষস্থানীয় অনেকেই চাইছেন না এই কালিমালিপ্ত ভাবমূর্তি নিয়ে তাঁকে আর মেয়র পদে রাখা হোক।

জানা যাচ্ছে, আপাতত রাজ্যের কোনও একটি মন্ত্রীপদে শোভনবাবুকে রাখা হলেও মেয়র পদ থেকে সরানো হতে পারে তাঁকে। মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁর স্ত্রী বিবাদ যে অবস্থায় পৌছেছে তা সম্পর্কে বেশ অবগত দলনেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সম্প্রতি, নিজের মেয়ের ভিসায় সই করতে না চাওয়ার স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে আর একদফা ঝামেলা রয়েছে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের। এই পরিস্থিতিতে দলের অনেকের চাইছেন না পারিবারিক বিবাদে জর্জরিত এমন ব্যক্তিকে মেয়র পদে রাখা হোক। দবে মেয়র পদ থেকে সরিয়ে দিলেও, দলে তাঁকে পুরোপুরি বসিয়ে দিতে রাজি নন অনেকেই। তবে শোভনবাবুকে যে সরানো হতে চলেছে তা একরকম নিশ্চিত। এ বিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নতুন মেয়র পদে কাকে রাখা হবে তা নিয়ে উঠে আসছে প্রশ্ন? মহানাগরিক পদের জন্য যে কয়েকটি নাম উঠে আসছে তাঁর সর্বাগ্রে রয়েছেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এছাড়াও সুব্রত বক্সি, অতীন ঘোষ ও দেবাশিস কুমারের মতো ব্যক্তিত্বরা। কিন্তু দলের কাজে মাঝে মধ্যেই বাইরে যেতে হয় সুব্রত বক্সিকে, এদিকে আসন্ন লোকসভা ভোটে উত্তর কলকাতা থেকে প্রার্থী করা হতে পারে মেয়র পারিষদ স্বাস্থ্য অতীন ঘোষকে। সেহেতু বাকি নামের মধ্যে রয়েছেন দেবাশিস কুমার ও পার্থ চট্টোপাধ্যায়। গোপন সুত্রে জানা যাচ্ছে, মেয়র পদের জন্য যদি পার্থ চট্টোপাধ্যায় রাজি না হন সেক্ষেত্রে দেবাশিস কুমারই হবেন কলকাতার নতুন মেয়র।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here