kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: নির্বাচনী মহাযজ্ঞে শেষ কবে তিনি চুপচাপ ঘরে বসে কাটিয়েছেন তা মনে করতে পারে না রাজ্যবাসী। এই হয়ত প্রথমবার লোকসভা নির্বাচনে তিনি ‘একঘরে’। লোকসভার আগে থেকে সেই যে সংবাদ মাধ্যমের নজর থেকে হারিয়ে গিয়েছিলেন তিনি, তাঁর দীর্ঘ সময় পর এলেন বটে তবে একরাশ আশঙ্কা নিয়ে। ইনি শোভন চট্টোপাধ্যায়। তৃণমূল ত্যাগী অভিমানী কলকাতার প্রক্তন মেয়র। কমিশনের কাছে সম্প্রতি একটি চিঠি লিখেছেন তিনি। যে চিঠিতে তাঁর দাবি, বুথে ভোট দিতে যাওয়ার সময় তাঁকে হেনস্থা করতে পারেন স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়। তাই বুথে চাই বাড়তি নিরাপত্তা।

আগামী রবিবার রাজ্যের ৯ কেন্দ্রে হচ্ছে শেষ দফার লোকসভা নির্বাচন। অন্যান্য কেন্দ্রের পাশাপাশি দক্ষিণ কলকাতায় শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বুথেও রয়েছে ভোট গ্রহণ পর্ব। বেহালা পশ্চিমের একটি বুথে ওইদিন ভোট দিতে যাবেন শোভন। কিন্তু তাঁর আশঙ্কা ওইদিন তাঁর বুথে হতে পারে অশান্তি। নির্বাচন কমিশনকে লেখা চিঠিতে তাঁর দাবি, ১৯ মে তিনি যখন ভোট দিতে যাবেন ওইদিন জনসমক্ষে তাঁকে হেনস্থা করতে পারেন তারই স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায় ও তাঁর সঙ্গীরা। শুধু হেনস্থা বা নিগ্রহ করেই ক্ষান্ত থাকবেন না রত্না, মিডিয়াকে ডেকে পাঠিয়ে তাঁর সম্মান ধুলিসাৎ করার চেষ্টাও করবেন। আর সেই কারণেই কোনও রকম অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে ভোটগ্রহণ কেন্দ্রে পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করার এবং মহিলা পুলিশ মোতায়েন রাখার আর্জিও জানিয়েছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়।

নির্বাচন কমিশনকে লেখা শোভনের চিঠিতে শোভন মনে করিয়ে দিয়েছে, কয়েকমাস আগে ঘটা রায়চকের ঘটনাও। তিনি বলেছেন ওই দিন দুষ্কৃতীদের তান্ডবে তাঁর জীবন সংশয় হওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। দ্বিতীয়বার যাতে সেই রকম পরিস্থিতি তৈরি না হয় তাই বেহালার শিশুভারতী স্কুল অর্থাৎ শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বুথে যেন দেওয়া হয় বাড়তি নিরাপত্তা। শোভনের লেখা ওই চিঠির প্রাপ্তি স্বীকার করেছে নির্বাচন কমিশন। তবে বাড়তি নিরাপত্তা দেওয়া হবে কিনা সে বিষয়ে কমিস্নের তরফে কিছু জানা যায়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here