ডেস্ক: আবারও একবার বিজয় মালিয়ার ওপর চাপ বাড়াল ব্রিটেন আদালত। শনিবার ব্রিটেন আদালতের বিচারপতি এমএস আজমি বিজয় মালিয়ার ওই বয়ানকে খারিজ করে দিয়েছে যেখানে সে বলেছিল যে, কেন্দ্রীয় সরকার তার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিশোধ নেওয়ার চেষ্টা করেছে। বিচারপতি আজমি নিজের ৫৫ পাতার আদেশে মালিয়াকে ‘অর্থনৈতিক নিয়ম লঙ্ঘনকারী পলাতক’ বলে চিহ্নিত করেছেন। তিনি বলেন, কেন্দ্রের বিরুদ্ধে এরকম একটা অভিযোগ এনে নিজেকে আইন পালনকারী নাগরিক হিসেবে নিজেকে প্রকাশ করা একেবারেই কাল্পনিক মাত্র।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ৫ জানুয়ারি শিল্পপতি বিজয় মালিয়াকে ‘পলাতক অর্থনৈতিক নিয়ম লঙ্ঘনকারী’ আখ্যা দেয় ব্রিটেন আদালত। এরপর আদালতের তরফ থেকে বলা হয় যে, তার সকল সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার ব্যপারে আদালত আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি রায় দেবে। সম্প্রতি আদালত বিজয় মালিয়ার প্রত্যার্পণ মামলায় সায় দেয়। মালিয়াকে ফেরানো গেলে কূটনৈতিক স্তরে তা ভারতের জন্য বিরাট সাফল্য হবে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। কারণ বিগত কয়েক বছর ধরে বিরোধীদের অভিযোগের মুখে নাজেহাল হতে হচ্ছিল কেন্দ্রকে।

প্রসঙ্গত, বিজয় মালিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হওয়ার পর থেকেই তাকে দেশে ফেরানোর অনেক চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু সম্প্রতি একটি ট্যুইটে তিনি জানিয়েছিলেন, তিনি ১০০ শতাংশ টাকা ফিরিয়ে দিতে প্রস্তুত আছেন। তবে তাঁর বিরুদ্ধে টাকা চুরির যে অভিযোগ উঠছে তা যেন বন্ধ করা হয়। মালিয়া আরও জানান, তিনি একটা টাকাও ধার করেননি। তাঁর কোম্পানি কিংফিশার এয়ারলাইনস ৯ হাজার কোটি টাকার ঋণ নিয়েছিল। তার গ্যারান্টার হওয়াটা কোনও অপরাধের নয়। অন্যদিকে মালিয়ার তরফের উকিলের বক্তব্য। তিনি বহু আগেই মূল টাকার ৮০ শতাংশ ব্যাঙ্কে ফিরিয়ে দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ব্যাঙ্কের তরফে সেই সময় কিছু জানানো হয়নি এবং তাকে দেশে ফেরানোর জন্য চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here