image

ডেস্ক: লোকসভা নির্বাচনের ইতিহাসে প্রথমবার পশ্চিমবঙ্গে সাত দফায় ভোট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। অন্যদিকে, ‘বিশেষ পর্যবেক্ষক’ হিসেবে রবিবারই শহরে পা রেখেছেন বিবেক দুবে। এদিন তাঁর সঙ্গে সর্বদলীয় বৈঠকও ছিল। সেই বৈঠকের সেশেই বিবেক দুবে স্পষ্ট করে দেন, এ রাজ্যে সমস্যা রয়েছে বলেই সাত দফায় ভোটগ্রহণ করতে হচ্ছে।

‘বিশেষ পর্যবেক্ষক’-এর সঙ্গে এদিনের সর্বদলীয় বৈঠক অবশ্য খুব একটা শান্ত ছিল না। বিজেপির প্রতিনিধি দলবল সহ মুকুল রায় পৌঁছনর পরই রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিরের সঙ্গে বিবাদ বাঁধে। বৈঠকে উপস্থিত হয়ে মুকুল জানান, মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক আদতে তৃণমূলের হয়ে কাজ করছেন। এহেন অভিযোগ তুলে আফতাবের সামনে পুলিশ পর্যবেক্ষকের সঙ্গে বৈঠক করতেও অস্বীকার করেন মুকুল রায়। বৈঠক ছেড়ে বেরিয়ে যান আফতাব। শেষ পর্যন্ত তাঁর অনুপস্থিতিতেই বিবেক দুবের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে মুকুলের নেতৃত্বাধীন বিজেপির প্রতিনিধি দল।

বৈঠক শেষে বিবেক দুবে বলেন, ‘অন্ধ্রপ্রদেশে তো এক দফায় ভোট হচ্ছে। এখানে সাত দফায় হচ্ছে। এবার আপনারাই বুঝুন কেন এখানে সাত দফায় ভোট হচ্ছে।’ তিনি আরও জানান, ‘আমরা চাই যেন সুষ্ঠু, অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হয়। যথেষ্ট পরিমাণ কেন্দ্রীয় বাহিনী রয়েছে আমাদের হাতে সব বুথেই সশস্ত্র পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকবে। আমাদের মূল লক্ষ্য সাধারণ মানুষ বা ভোটারদের বিশ্বাস তৈরি করা। যাতে তারা নির্ভয়ে ভোট দিতে পারে।।’

তবে এদিন মুকুল রায় রাজ্য প্রশাসনের বিরুদ্ধে যে গুরুতর অভিযোগগুলি তুলেছেন তার অধিকাংশই খারিজ করেছেন বিবেক দুবে। জানান, ‘কখনই সব পুলিশ খারাপ হতে পারেন না। ভালো খারাপ তো মিশিয়েই থাকে। সবার বিরুদ্ধেই আঙুল তোলা সমীচীন না। অনেক দক্ষ পুলিশ অফিসারও রয়েছে। একই সঙ্গে স্পর্শকাতর বুথ সম্পর্কে তিনি বলেন, উত্তরবঙ্গের বেশ কিছু বুথকে চিহ্নিত করা হয়েছে। সেগুলি খতিয়ে দেখা হবে বলে জানান রাজ্যের বিশেষ পর্যবেক্ষক।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here