news sports

মহানগর ওয়েবডেস্ক: দেশের জোড়া বিশ্বকাপজয়ী নির্বাসিত পেসার এস শ্রীসন্থ মনে করেন যে, ভারতীয় দলে রোহিত শর্মা টি-২০ অধিনায়ক হিসেবে অনেক ভাল। তাঁর মতে বর্তমান ভারতে প্রথম একাদশে সুরেশ রায়নার আলাদা মাহাত্ম্য থাকবে। তিনি রোহিত ও বিরাট কোহলির মধ্যে ক্যাপ্টেনসি ভাগাভাগি করে দিতে চান।

শ্রীসন্থ বলছেন, “আমি বিশ্বাস করি সব ফরম্যাটে একটাই দল খেলুক। সুরেশ রায়না আরও অনেক বেশি তারিফযোগ্য। আমি বিরাটকে সম্মান জানিয়েই বলছি ওয়ানডে ও টেস্টে বিরাট ক্যাপ্টেন থাকুক। টি-২০ ফরম্যাটে ক্যাপ্টেনসির ব্যাটন উঠুক রোহিতের হাতে।”

শ্রীসন্থ নিজেকে রেখেই বর্তমান ভারতীয় দল বেছে নিয়েছেন। তিনি চান রোহিত ও শিখর ধাওয়ান ওপেন করুক। তিনে কোহলি ও চারে নামুক রায়না। পাঁচে কেএল রাহুল ও ছয়ে এমএম ধোনি। তাঁর টিমে দু’জন অলরাউন্ডার হিসেবে থাকছেন হার্দিক পণ্ডিয়া ও রবীন্দ্র জাদেজা। বিশেষজ্ঞ স্পিনার হিসাবে থাকছেন কুলদীপ যাদব। দুই পেসার- যসপ্রীত বুমরা ও শ্রীসন্থ।

অন্যদিকে, সাত বছর পর ফের খেলার মাঠে দেখা যেতে চলেছে ৩৭ বছরের শ্রীসন্থকে। শ্রীসন্থ যদি নিজের ফিটনেস প্রমাণ করতে পারেন তাহলে আসন্ন সেপ্টেম্বরে কেরলের হয়ে তাঁকে রঞ্জি খেলতে দেখা যেতে পারে। এমনটাই ইঙ্গিত দিয়েছে কেরল ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন (কেসিএ)।

২০১৩ সালে আইপিএলে স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগে শ্রীসন্থ ও তাঁর দুই রাজস্থান রয়্যালস সতীর্থ অজিত চন্ডিলা এবং অঙ্কিত চৌহানকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এই ঘটনায় দেশের জোড়া বিশ্বকাপজয়ী পেসারকে আজীবন ক্রিকেট থেকে নির্বাসন করে বিসিসিআই। কিন্তু শ্রীসন্থ হাল ছাড়েননি। বোর্ডের এই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে আইনি লড়াই চালিয়ে যান তিনি।

২০১৫ সালে শ্রীসন্থকে নির্দোষ ঘোষণা করে দিল্লির এক আদালত। আর এর ঠিক তিন বছর পর তাঁর আজীবন নির্বাসনের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করতে বোর্ডকে নির্দেশ দেয় কেরাল হাইকোর্ট। এর পরের বছর এই মামলায় দেশের সর্বোচ্চ আদালত শ্রীসন্থকে দোষী চিহ্নিত করে বোর্ডকে তাঁর শাস্তি কমানোর নির্দেশ দেয়। সুপ্রিম রায় শ্রীসন্থের আজীবন নির্বাসন কমিয়ে সাত বছর করে বোর্ড। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে সেই মেয়াদ শেষ হচ্ছে। মুক্ত হচ্ছেন শ্রীসন্থ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here