ডেস্ক: সাংবাদিক গৌরি লঙ্কেশের হত্যাকাণ্ডে এবার হিন্দুত্ববাদী সংগঠন শ্রীরাম সেনার দলের নাম জড়াল। এই হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত পরশুরাম বাগমারের পরিবারকে চাঁদা তুলে আর্থিক সাহায্য করবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে শ্রীরাম সেনা। এরজন্য দলের বিভিন্ন কর্মকর্তারা যে যার নিজের ফেসবুক পেজে এই চাঁদা তোলার পোস্টারটি শেয়ার করেছে। তাঁরা বলেছেন যে, বাঘমারের পরিবার খুবই দরিদ্র তাই তাঁরা চাঁদা তুলে সাহায্য করবে । এই পোস্টারে পরশুরাম বাঘমারের একটি ছবিও দেওয়া হয়েছে এবং নিচে লেখা রয়েছে যে, ‘ধর্মের রক্ষাকারীকে আর্থিক সাহায্য করার জন্য আগে আসুন’। পোস্টারে পুরো ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের বিবরণও দেওয়া রয়েছে।

২০১৭ সালের ৫ সেপ্টেম্বর গৌরি লঙ্কেশকে ব্যাঙ্গালুরুতে তাঁর বাড়ির সামনে গুলি করে হত্যা করে পরশুরাম বাঘমারে। তাঁর হত্যার পিছনে অনেক হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের নাম সামনে আসতে থাকে। কিন্তু সবাই এই কাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করে। শনিবার বাঘমোরের গ্রেপ্তারীর পর শ্রীরাম সেনা এই মামলা থেকে নিজেদের গা বাঁচিয়ে নিয়েছে কিন্তু তাঁকে সমর্থন করছে। এই মামলার তদন্তকারী অফিসাররা শনিবার পরশুরামের বাবা এবং শ্রীরাম সেনার জেলা সভাপতি রাকেশ মথকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। সেখানেই শ্রীরাম সেনা এই মামলা থেকে নিজেদের গা বাঁচিয়ে পরশুরামকে আরএসএসের সদস্য বলে দাবী করেছে। উল্লেখ্য রাকেশ মথ হলেন পরশুরামের বন্ধু। তিনি দাবী করেছেন যে, পরশুরাম পুরোপুরি নির্দোষ। সে একজন খুবই ভাল মানুষ, মিথ্যে মামলায় তাঁকে ফাঁসানো হচ্ছে।

পুলিশ জানিয়েছে, পরশুরাম গ্রেপ্তারীর পর থেকে সে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছে। সে বাবা মায়ের সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিল। পুলিশি জেরাতে সে জানিয়েছে যে, ধর্মকে রক্ষা করতে তাঁকে একজনকে হত্যা করতে হবে। সেইমত তাকে ট্রেনিংও দেওয়া হয়। সে পুলিশকে এও বলেছেন যে তিনি নাকি জানতেন না যে কাকে হত্যা করতে হবে। এই ঘটনার আগেও তিনি গৌরি লঙ্কেশকে হত্যা করার চেষ্টা করে কিন্তু ব্যর্থ হয়। কিন্তু অবশ্য তারপরের দিনই একদম কাছ থেকে গৌরি লঙ্কেশকে হত্যা করে পরশুরাম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here