Parul

মহানগর ডেস্কঃ আদিবাসীদের অধিকারের দাবীতে সরব হওয়ার এক জোড়ালো কন্ঠস্বর ছিলেন সমাজকর্মী স্ট্যান স্বামী। আজ সোমবার সকালে মুম্বাইয়ে হোলি ফ্যামিলি হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু ঘটে।মৃত্যুকালীন তাঁর বয়স হয়েছিলো ৮৪ বছর।

ads

স্ট্যান স্বামী গতি এক বছর ধরে মুম্বাইয়ে জেলে বন্দি ছিলেন।  ভীমা  কোরেঁগাও মাওবাদী মামলায় তাকে আটক করা হয়েছিলো।  মাওবাদীদের সাথে যোগসূত্রের অভিযোগ উঠে তার বিরুদ্ধে। ঝাড়খণ্ডের বাসিন্দা ছিলেন স্ট্যান স্বামী। আদিবাসীদের অধিকারের জন্য তিনি তাঁর জীবনের দীর্ঘ সময় ধরে লড়াই চালিয়েছেন।

গত বছর অক্টোবর মাসে তাঁকে গ্রেপ্তার করে এখন.আই.এ.। ২০১৭ সালে পনের ভীমা কোরেঁগায়ে মাওবাদীদের সাহায্য হিংসা ছড়ানোর  অভিযোগ উঠে তাঁর বিরুদ্ধে।  এরসাথে যুক্ত ছিলো মাওবাদীদের ঘনিষ্ঠ সংগঠন ‘এলগার পরিষদ’। তিনি ও তার সঙ্গীদের এদের থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ দায়ের করেন তদন্তকারী সংস্থা এন.আই.এ।

তিনি ও তার সঙ্গীদের  মুম্বাইয়ে উচ্চ আদালতের নির্দেশে নভি মুম্বাইয়ে আলোজা জেলে বন্দি করার ব্যবস্থা করা হয়। তারপর থেকেই তারা জেলের অব্যবস্থা ও চিকিৎসাজনিত ব্যবস্থার বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন আদালতে। 
     
সম্প্রতি মে মাসে এলগার পরিষদ মাওবাদী সংযোগ মামলাটি বিচারপতি এস. জে. কাঠওয়ালের এজলাসে উঠে।বিচারপতি ও এস. পি তাভাডের সম্মুখে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে স্ট্যান স্বামীকে পেশ করা হয়।তিনি সেখানে জেলে অব্যবস্থা নিয়ে  আবারও মুখ খোলেন। গ্রেফতার হওয়ার আগে তিনি ঠিকই ছিলেন। একা চলাফেরা করতেন, একা একা স্নান খাওয়া লেখালেখি সবই করতেন। কিন্তু গ্রেফতার হওয়ার পর তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে।জেলে ঠিক মতো খেতেও পান না। একা আর তেমন কিছই করতে পারেন না।  অন্যের সাহায্য লাগে। এমনকি অন্যকে চামচ দিয়ে খাইয়ে দিতে হয়।

আদালত  তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি কথা মাথায় রেখে তাকে মুম্বাইয়ে জেজে হাসপাতালে ভর্তির প্রস্তাব দেয়।কিন্তু আদালতের প্রস্তাব তিনি ফিরিয়ে দেন। কারণ তাঁর মতে তিনি আগেও দুবার ওই হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।  সেখানকার চিকিৎসার অব্যবস্থার কথা তিনি আদালতকে জানান।

এরপর তিনি উচ্চ আদালতে জামিনের দরখাস্ত করলে আদালত সেটি মঞ্জুর করে না। উল্লেখ্য গত ২৮ শে মে থেকে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে তাঁর আইনজীবী সেটি আদালতে জানান। এরপরই তাকে হোলি ফ্যালিলি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়ে। গত সপ্তাহে তিনি উকিলের মাধ্যমে আবারও জামিনের আবেদন  করেন। গতকাল থেকে তাঁর স্বাস্থ্য চূড়ান্ত অবনতি হতে শুরু করে।  রাখা হয় ভেন্টিলেটরে। এরপর আজ সকালে তিনি মৃত্যু বরণ করেন।  আদালতের রায় আর তার শোনা হলো না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here