nirbhaya convicts

মহানগর ওয়েবডেস্ক: নির্ভয়ার চার ধর্ষকের ফাঁসির সাজার পর খুশির বন্যা বয়ে গিয়েছে গোটা দেশে। যেন সাত বছর ধরে বয়ে আসা পাপের শাপমুক্তি হয়েছে। সিংহভাগ ভারতবাসী এই শাস্তিতে আনন্দ পেলেও রাষ্ট্রসংঘ একেবারেই তা ভালোভাবে নেয়নি। প্রত্যেক দেশকে উদ্দেশ্য করে তারা বলেছে, শাস্তি হিসেবে হয় মৃত্যুদণ্ড দেওয়া বন্ধ করা হোক। নয়তো স্থগিত রাখার ব্যবস্থা করা হোক। নির্ভয়াকাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত চার যুবকের ফাঁসি হওয়ার পরেই এই আবেদন করে রাষ্ট্রসংঘ।

শুক্রবার ভোর সাড়ে পাঁচটা, ভারতবর্ষে ঘটে যাওয়া অন্যতম ন্যক্কারজনক ধর্ষণের সাজা হয় সাত বছর বিচারের পর। মুকেশ সিং, পবন গুপ্ত, বিনয় শর্মা, এবং অক্ষয় ঠাকুর সিং। প্রথমবার একসঙ্গে চার যুবকের ফাঁসি হয় তিহাড় জেল তথা ভারতে। এই নিয়ে কথা বলতে গিয়ে রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সচিব অ্যান্টোনিও গুতেরেজ বলেন, বিশ্বের প্রথম সারির দেশগুলির উচিত ফাঁসির সাজা এবার অন্তত বন্ধ করা। ‘আমরা সর্বদাই নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট রেখেছি। আবার প্রত্যেকটা রাষ্ট্রকে আমরা আবেদন জানাচ্ছি যেন মৃত্যুদণ্ড তারা বন্ধ করে।

শুধু ভারতে তো নয়, গোটা দক্ষিণ এশিয়ার ইতিহাসে একসঙ্গে চারজনের ফাঁসির নজির নেই বললেই চলে। ২০১২ সালের ১৬ ডিসেম্বর দিল্লির রাজপথে যে ঘটনা ঘটেছিল সেই ধরনের নজিরও খুব একটা নেই। দুইয়ে মিলিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে ব্যাপক শোরগোল সৃষ্টি করেছে। অনেকেই এই ফাঁসির পক্ষে কথা বলেছেন। অনেকেই বিপক্ষে। তবে শেষ পর্যন্ত আইনি লড়াই পেরিয়ে ফাঁসিই হয়েছে চার দোষীর। তবে এটাও মনে রাখতে হবে, আইনি পথে হেঁটে তাদের ফাঁসি পরপর তিনবার পিছিয়ে দিয়েছিলেন দোষীদের আইনজীবী। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর পারেননি। আইনি বিকল্প আর তাদের হাতে ছিল না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here