মহানগর ওয়েবডেস্ক: বর্তমানের তীব্র প্রতিযোগিতার যুগে টিকে থাকতে গেলে আপনাকে সেরা হতেই হবে। আর এই সেরা হওয়ার জন্য আপনাকে করতে হবে কিছু আলাদা, কিছু স্পেশাল। পড়াশোনার ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। স্রেফ গতানুগতিক ধাঁচে পড়াশুনা করলেই হবে না, দিতে হবে কিছু এক্সট্রা, কিছুটা ইউনিক। তাহলেই পরীক্ষার নম্বরেও বাকি সকলকে ছাপিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আরও জোরালো হবে।

এই আলাদা কিছুই বছরের পর বছর ধরে পড়ুয়াদের ডিএনএ’র মধ্যে ‘মিশিয়ে’ দিচ্ছে অ্যাডামাস ইন্টারন্যাশানাল স্কুল। তাই প্রতি পরীক্ষাতেই শহরের আর পাঁচটা স্কুলকে বলে বলে গোল দিচ্ছে অ্যাডামাসের পড়ুয়ারা। করোনা আবহেই সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে সিবিএসই ও আইএসসি পরীক্ষার ফল। আর সেখানে বিগত বছরের মতোই অসাধারণ রেজাল্ট করেছে অ্যাডামাস ইন্টারন্যাশানাল স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা।

এবছর এই বিদ্যালয় থেকে ISC পরীক্ষায় বসেছিল ২৫৪ জন পড়ুয়া। বলা বাহুল্য কেউই অকৃতকার্য হয়নি। ৯০ শতাংশের বেশি নম্বর পেয়েছে ৭২ জন, ৮০-৮৯ শতাংশ পেয়েছে ১১৬ জন পড়ুয়া। ৭০-৭৯ শতাংশ ও ৬০-৬৯ শতাংশ নম্বর পেয়েছে যথাক্রমে ৫৪ ও ১২ জন। হিউম্যানিটিজে বিদ্যালয় থেকে সর্বোচ্চ নম্বর ঋতব্রত চক্রবর্তীর (৯৯.৫%)। সায়েন্সে সর্বোচ্চ নম্বর অনুষ্কা বিশ্বাস ও শ্রুতি আগরওয়ালের (৯৮%)। কমার্সে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েছে মোহিত সুরানা (৯৭%)।

এবার আসা যাক ICSE-র ফলাফলে। বিদ্যালয় থেকে এবছর পরীক্ষা দিয়েছিল ২৬৮ জন, উত্তীর্ণের হার ১০০ শতাংশ। এদের মধ্যে ৯০ শতাংশের বেশি পেয়েছে ১০৩ জন, ৮০-৮৯ শতাংশ পেয়েছে ৯২ জন, ৭০-৭৯ শতাংশ পেয়েছে ৬২ জন, ৬০-৬৯ শতাংশ পেয়েছে ১০ জন ও ৫০-৫৯ শতাংশ নম্বর পেয়েছে একজন। বিদ্যালয় থেকে সর্বোচ্চ নম্বর যে চারজন পেয়েছে তারা হল, পৃথা রায় (৯৮.৮%), উমঙ্গ আগরওয়াল (৯৮.৬%), পুষ্পার্ঘ্য মল্লিক (৯৮.৬%) ও স্বস্তিক খাঁ (৯৮.৪%)।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here