Untitled 1
Untitled 1

ডেস্ক: চলবে না ছাত্র কাউন্সিল, ফিরিয়ে আনতে হবে ছাত্র সংগঠন। এই দাবি নিয়ে অবস্থান বিক্ষোভে নামল বাম ছাত্র সংগঠনের সদস্যরা। শেষ পর্যন্ত বিক্ষোভকারীদের লাগাতার চাপের মুখে সোমবার ভোরে জানানো হয়, দুপুর ১২টায় এই বৈঠকে বসা হবে। গতকালও এই নিয়ে একপ্রস্থ বৈঠক করা হয় কিন্তু কোনও সুরুহা বেরিয়ে আসেনি। আন্দোলনকারী ছাত্রদের চাপে সারারাত বিশ্ববিদ্যালয়েই আটকে থাকেন উপাচার্য।

উল্লেখ্য, ছাত্র সংগঠনের দাবিতে এর আগেও আন্দোলনে সামিল হয়েছে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা। গত ৯ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুরঞ্জন দাসকে দীর্ঘক্ষণ ঘেরাও করে রাখেন বামপন্থী আন্দোলনকারীরা। কিন্তু যাদবপুরে ছাত্র আন্দোলনের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন খোদ উপাচার্য। তিনি বলেন, ‘আইন তো সরকার এনেছে। সেই আইন সরকারকেই বদলাতে হবে। সরকারের সঙ্গে আলোচনার জন্য যাদবপুরের সবপক্ষকে নিয়ে কমিটি গড়ার প্রস্তাব দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।’

এরপরই ছাত্রদের সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ বৈঠক করেন সুরঞ্জন দাস। গতকাল দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের অরবিন্দ ভবনের সামনে জড়ো হন ছাত্রছাত্রীরা। ইউনিয়নের দাবিতে স্লোগান তোলেন। কিন্তু, বহুক্ষণ অপেক্ষার পরও কিছু জানাতে না পেরে আন্দোলনে বসেন তাঁরা।

অন্যদিকে যাদবপুরের বিক্ষোভ নিয়ে কড়া বার্তা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী তথা তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘পড়ুয়াদের একাংশই অচলাবস্থা তৈরি করে। কিন্তু পরিকাঠামো উন্নয়নের আন্দোলন করে না পড়ুয়ারা। যাদবপুরে ছাত্র কাউন্সিলের নির্বাচনই হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here