ডেস্ক: আনলাকি ১৩ নয়, এক্ষেত্রে বলাই যায় লাকি ১৩। শেষ পর্যন্ত জিতে গেল জীবন। অক্লান্ত চেষ্টার পর মঙ্গলবার থাইল্যান্ডের থাম লিয়াং গুহায় আটকে থাকা বাকি ৫ জনকেও উদ্ধার করেছে থাইল্যান্ড সেনা ও ডুবুরিরা। এদিন উদ্ধারকার্যে নেমে একে একে ৪ কিশোর ফুটবলারকে উদ্ধার করেন থাইল্যান্ড সেনা ও ডুবুরিরা। শেষে বাকি ছিলেন ‘ওয়াইল্ড বোয়ার দলের ২৫ বছর বয়সী এক প্রশিক্ষক। তাঁকেও শেষ পর্যন্ত অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা যায় বলেই খবর। প্রসঙ্গত, রবি ও সোমবার মোট ৮ ফুটবলারকে উদ্ধার করা হয়। তাঁদের সবাইকে চিকিৎসার জন্য চিয়াং হাই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এই ক্ষুদে ফুটবলারদের উদ্ধার করার জন্য থাইল্যান্ডের পাশে এসে দাঁড়ায় আমেরিকা, জাপান, চিন ও বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থাও। গত ২৩ জুন যখন ১৩ জনের দলটি গুহা অভিযান করে, তখন অবশ্য সবই স্বাভাবিক ছিল। কিন্তু হঠাৎ হড়পা বানের জেরে গুহার ভেতর জল ঢুকতে শুরু করে। আর তার ফলেই আটকে পরে ১২ ক্ষুদে খেলোয়াড় ও তাদের প্রশিক্ষক। এর পরের পরিস্থিতি প্রায় সকলেরই জানা। ২৩ জুন থেকে প্রায় দু সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে অন্ধকার গুহার গভীরে আটকে থাকতে হয়েছে এই ফুটবল দলটিকে। এই খবর জানার পর থেকেই প্রচন্ড উৎকন্ঠায় দিন কাটে গোটা বিশ্বের। ইতিমধ্যেই শুরু হইয়ে যায় উদ্ধার অভিযানও। ব্রিটেন, অস্ট্রেলিয়া থেকে আনা হয় প্রশিক্ষিত ডুবুরি। অবশেষে যমে মানুষের লড়াইয়ে যমের জালে বল জড়িয়ে শেষ পর্যন্ত জিতে যায় ক্ষুদেরাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here