kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, বারুইপুর:  লকডাউনের মধ্যেই রাজনৈতিক ঝামেলায় উত্তেজনা ছড়াল কুলতলি বিধানসভার মৈপীঠ কোস্টাল থানা এলাকায়। বৈকুণ্ঠপুরে এসইউসিআই কর্মী ভক্তি দাসের বাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠল তৃণমূল যুবনেতা গণেশ মণ্ডলের অনুগামীদের বিরুদ্ধে। অভিযোগ, বাড়ি ভাঙচুর ঠেকাতে গেলে এসইউসি কর্মী ভক্তি দাসের স্ত্রী মনিদীপা দাসকে বেধড়ক মারধর করে মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়। আহত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে জামতলা গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

শনিবার ঘটনাটি ঘটে। এর জেরে এলাকায় উত্তেজনা ছড়ায়। মৈপীঠ থানার পুলিশ এলাকায় পৌঁছে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। এই প্রসঙ্গে কুলতলি পঞ্চায়েত সমিতির এসইউসি দলের সদস্যা গৌরী মণ্ডল বলেন, করোনার সময় যমে মানুষে টানাটানি চলছে। সেই সময় এসইউসি করার অপরাধে আমাদের দলের কর্মী ভক্তি দাসের বাড়ি ভেঙে দেয় তৃণমূল যুব কংগ্রেসের নেতা গণেশ মণ্ডলের অনুগামী সমীরণ দাস, কালীপদ হালদার, রাজু ভাণ্ডারী-সহ ১৬ জন। এমনকী তাঁর স্ত্রী মনিদীপা দাসকে লোহার রড দিয়ে বেধড়ক মেরে মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়। এর আগে বুধবার ওই কর্মীর বাড়িতে চড়াও হয়েছিল তৃণমূলের কর্মীরা।

জানা গিয়েছে, এদিন সকালে ভক্তি দাসের বাড়িতে কেউ ছিলেন না। তারা সবাই ধান কাটতে গিয়েছিলেন। বাড়িতে তার স্ত্রী মনিদীপা ছিলেন। তখন তৃণমূলের একদল সমর্থক লাঠি, বাঁশ নিয়ে তার বাড়িতে চড়াও হয়ে আক্রমণ করে। এমনকী খাবারের চালে তেল, বালি মিশিয়ে দেওয়া হয়। বাড়িটী পুরো ভেঙে দেয় তারা। যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করে যুব তৃণমূল নেতা গণেশ মণ্ডল বলেন, এই ঘটনা আমার জানা নেই। আমাদের কেউ জড়িত নেই। এদিকে পুলিশ জানিয়েছে, আগের বুধবারের বাজারে দোকান করা নিয়ে ঝামেলা হয়েছিল ভক্তি দাসের সঙ্গে। দোকান দখল করা জায়গায় ছিল। তারপরে তার দোকান বন্ধ করতে বলেছিল বাজার কমিটি। এরপরেই এই তার বাড়িতে আক্রমণের একটা অভিযোগ আসে। তদন্ত চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here